দেখেনিন সপ্তাহের বৈজ্ঞানিক সেরা ৫ ছবি!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ নানা রকম ছবিই তো সেরা হয়। বিজ্ঞানের এই সপ্তাহের সেরা ছবিগুলো দেখতে এবং জানতে পারবেন এই প্রতিবেদনে। পপুলার সায়েন্স এর প্রতিবেদন অনুসারে ছবিগুলো সংগ্রহ করা হয়েছে।


1

১. স্কুইডের কালিতে ছাপানো বই

কেমন হয় বইয়ের কাহিনির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ গন্ধও যদি বের হয় বইয়ের পাতা থেকে ? স্টুডিও টুডের ডিজাইনাররা এবার সেই ব্যবস্থাই করলেন । নাবিকদের ২০টি গল্প নিয়ে তৈরি করা এই বই খুললেই এক ধরনের সামুদ্রিক মেছো গন্ধ পাবেন পাঠকরা। কারণ বইটি ছাপানো হয়েছে সামুদ্রিক প্রাণী স্কুইডের দেহতে উৎপন্ন কালি দিয়ে! ৪৮ পৃষ্ঠার এই বইটি ছাপানো হয়েছে ডাচ ভাষায় ।

২. কুমড়ো ও জ্বলন্ত ডায়নোসর

2
হ্যালোউইন মানেই ভূতের মতো মুখ করে কাটা কুমড়োর প্রতিকৃতি। হ্যালোউইন উৎসবে আমেরিকার নিউইয়র্কে প্রতি বছরই ‘দি গ্রেট জ্যাক ও ল্যানটার্ন ব্লেজ’ নামের প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। প্রদর্শনীতে বিদ্যুতায়িত বাতির সাহায্যে বিচিত্র রকমের ডায়নোসরের এক পার্ক তৈরি করা হয়। আর তার মাঝে ভূতুড়ে কুমড়োগুলো বসানো হয়। ভুতুড়ে পরিবেশ তৈরি করতে আরো থাকে নানা আয়োজন। ২৫ দিন ধরে চলে এই প্রদর্শনী।

৩. প্রতিযোগিতার বিষয় অনুজীবের ছবি

3
মানুষ আর প্রকৃতির ছবি নিয়ে দেদারসে প্রতিযোগিতা হলেও নিকন এবার আয়োজন করলো অনুজীবের ছবি তোলা প্রতিযোগিতা। প্রতি বছরই এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে তারা। এ বছর মেরিন ডায়াটম (Chaetoceros debilis) নামের এই ছবি তুলে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন নেদারল্যান্ডের উইম ভ্যান এগমন্ড।

৪. খুলির তৈরি গির্জা

4
মানুষের কঙ্কালের হাড়গোড় দিয়ে পোল্যান্ডে তৈরি হলো এক গির্জা। ক্যাপলিকা জাসজেক নামের ক্ষুদে এই গির্জাটি তৈরিতে ৩ হাজারেরও বেশি মানুষের দেহাবশেষ ব্যবহার করা হয়। ১৭৭৬ থেকে ১৮০৪ সাল পর্যন্ত ভ্যাকলাভ তোমাসেক নামের এক পাদ্রি নানা যুদ্ধে, মহামারিতে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের দেহাবশেষ থেকে এই কঙ্কালগুলো সংগ্রহ করেন।

৫. ড্রাগন বিএমডব্লিউ

5
পাখা নাড়িয়ে উড়তে না পারলেও ড্রাগনের মতই আভিজাত্য নিয়ে রাস্তার সবার দৃষ্টি কাড়বে ছবির এই বিএমডব্লিউ। উজ্জ্বল সোনালি রঙের এই বিএমডব্লিউর নাম জেড ফোর। সম্প্রতি চীনের গুয়াংডংয়ে এক্সপোর্ট আন্ড ইমপোর্ট ফেয়ারে এটি প্রদর্শিত হয়। ড্রাগনের মতো পাখাগুলো তৈরি করা হয়েছে চমরি গাইয়ের হাড় দিয়ে। গাড়িটি রাস্তায় নামলে প্রতি ঘণ্টায় ১৫৬ মাইল যেতে পারবে, সেটা জানা গেলেও শেষাবধি কেউ এটিকে কিনে রাস্তায় নামিয়েছে কিনা তা জানা যায়নি।

তথ্যসূত্র: পপুলার সায়েন্স

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...