The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ইরানের শান্তির পথকে বাঁকা চোখে দেখছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ শান্তির পথকে সমর্থন না করার মধ্যে কি কৃতিত্ব আছে তা ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীই জানেন। বিতর্কিত পরমাণু ইস্যুতে যখন ইরান শান্তির পথে যেতে চাইছে তখন ইসরাইল এটিকে বাঁকা চোখে দেখছে।

Iran-1

বিতর্কিত পরমাণু ইস্যুতে বছরের পর বছর ধরে ইরানের চলমান কূটনৈতিক টানা-হেচড়ার মাঝেও আশার আলো ফুটে উঠেছে বিশ্ব নেতাদের চোখে। আগামী ২০ নভেম্বর নতুন বৈঠকে এবার একটা দফারফা হতে পারে সে আশাতেই মুখিয়ে আছেন বিশ্ব নেতারা। কিন্তু এরই মাঝে শনিবার আলোচনার সে সুবাতাসে বিঘ্ন সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ইতিমধ্যেই ইরান ও আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা-আইএইএ’র সাম্প্রতিক চুক্তিকে বিশ্ব শান্তির জন্য হুমকি বলে উল্লেখ করেছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। মধ্যপ্রাচ্যের একমাত্র পরমাণু অস্ত্রধারী দেশ ইসরাইল শত শত গণবিধ্বংসী অস্ত্র মজুদ রেখে ইরানের শান্তিপূর্ণ পরমাণু চুক্তির সমালোচনা শুরু করেছে। তেহরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের সমঝোতামূলক সুসম্পর্কের তীব্র সমালোচনা করে নেতানিয়াহু বলেছেন, ‘এ চুক্তিতে ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল হলে বিশ্বশান্তি হুমকির মুখে পড়বে’।

সমপ্রতি জার্মান পত্রিকা দাই তাগেসজেতুন পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে ইরান-আইএইএ’র সাম্প্রতিক চুক্তি নিয়ে সংস্থার মহাপরিচালক ইউকিয়া আমানোর কড়া সমালোচনা করেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

Iran

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে পরমাণু কর্মসূচি পরিদর্শনের জন্য ইরান সফর করেন আমানো। এ সময় তেহরানের পরমাণু প্রকল্প এগিয়ে নেয়ার জন্য দু’পক্ষের মধ্যে একটি চুক্তি অনুষ্ঠিত হয়। এই চুক্তি অনুযায়ী, আইএইএ’র প্রতিনিধি দলকে ইরানের আরাক হেভি ওয়াটার প্রকল্প ও বন্দর আব্বাসের গাচিন ইউরেনিয়াম খনি পরিদর্শনের সুযোগ দেবে। ইরান থেকে ফিরে ভিয়েনায় আমানো এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ইরানের সঙ্গে আলোচনা খুবই গঠনমূলক হয়েছে এবং দু’পক্ষই চমৎকারভাবে এ প্রক্রিয়াকে সামনে এগিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...