The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

X-51A WaveRider: রেকর্ড সময় ব্যাপী শব্দের চেয়ে বেশি গতিতে উড়তে সক্ষম স্ক্র্যামজেট

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ নাসা কর্তৃক নির্মিত মানুষ্যবিহীন স্ক্র্যামজেট Boeing X-51A, শব্দের চেয়ে বেশি দ্রুত গতিতে অর্থাৎ হাইপারসনিক ফ্লাইট দিতে সক্ষম। স্ক্র্যামজেটটি এর সর্বশেষ পরীক্ষামূলক ফ্লাইটে সর্বোচ্চ গতিবেগ উঠিয়ে এবং একই সাথে দীর্ঘ সময় উড্ডয়ন অবস্থায় থেকে রেকর্ড করেছে।


flight

স্ক্র্যামজেট (সুপারসনিক কমবাশন র‌্যামজেট) হল র‌্যামজেট এয়ারব্রেদিং কমবাশন জেট ইঞ্জিনের একটি প্রকারভেদ যাতে দহন প্রক্রিয়াটি সুপারসনিক বায়ুপ্রবাহে সম্পন্ন হয়। অক্সিজেন জ্বালানি হিসাবে ব্যবহারের ফলে এর আকৃতি হয় ছোট, হালকা এবং দ্রুত গতি সম্পন্ন। দ্রুত গতির হওয়ার কারণে এর কাঠামো সাধারণত পুরে যাবার কথা। তবে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় দ্রুত গতিতে উড়ার ফলে সৃষ্ট উত্তাপকে মানিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা থাকে স্ক্র্যামজেটগুলোতে।

স্ক্র্যামজেট এর গতি শব্দ এর সাথে তুলনা করে নির্ধারণ করা হয়। স্ক্র্যামজেট শব্দের গতির চেয়ে বেশি গতিতে ফ্লাইট দিতে সক্ষম। এই ধরণের উড্ডয়ন যানগুলোর গতি সাধারণত মাক সংখ্যা দ্বারা মাপা হয়। মাক সংখ্যা হল বাতাস বা অন্য কোন মাধ্যমের মধ্য দিয়ে চলমান কোন বস্তুর গতিকে শব্দের গতি দ্বারা ভাগ করে প্রাপ্ত সংখ্যা।

স্ক্র্যামজেট নির্মাণ করা হয় হাইপারসোনিক ফ্লাইট দেয়ার স্বার্থে। হাইপারসনিক ফ্লাইট বলতে, বায়ুমন্ডল ভেদ করে মাক ৫.৫ এর উপর গতিসীমার কোন উড্ডয়নকে বোঝায়। এই মাত্রায় বাতাস সবোর্চ্চ তাপীয় সীমায় পৌছায় যার ফলে, উড্ডয়ন যান, প্লেন গলে যেতে পারে। এজন্য বিশেষ প্রকার পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়। x-15 রকেট প্লেন, স্পেস শাটল অরবিটার, এ্যাপোলো কমান্ড মডিউল, স্ক্র্যামজেট ইত্যাদি হাইপরসনিক ফ্লাইট দেয়ার উপযোগি হয়ে থাকে।

নাসা নির্মিত স্ক্র্যামজেট Boeing X-51A টি হাইপারসনিক ফ্লাইট দেয়ার জন্য তৈরি বিশেষ প্রকারের স্ক্র্যামজেট। এটি X-51A WaveRider নামেও পরিচিত। এটা হাইপারসনিক স্পিড পরীক্ষামূলক কাজে ব্যবহার করা হয়। হাইপারসনিক স্পিড ছিল শব্দের চেয়েও ৫গুণ বেশি মাত্রার। এই বছরের ১ মে এর একটি ফ্লাইটে, X-51A WaveRider মাক ৫ গতিসীমা অর্জন করে যা একটা মাইলফলক ছিল। যা সমুদ্র উচ্চতায় প্রতি ঘন্টায় ছিল ৬,২০০ কিলোমিটার। অধিক উচ্চতায় এটা ছিল ঘন্টায় ৫,৩০০ কিলোমিটার।

X-51A WaveRider প্রথম হাইপারসনিক ফ্লাইট দেয়ার চেষ্টা চালানো হয় ২০১০ সালের মে মাসের ২৬ তারিখে। পরবর্তীতে এই স্ক্র্যামজেটটি আরো দুটি পরীক্ষামূলক ফ্লাইট দেয়। কিন্তু দুটি ফ্লাইটই ব্যর্থ হয়। চলতি বছরের ১ মে তে দেয়া ৪র্থ ফ্লাইটি সফলতার মুখ দেখে। ২৫ ফুট লম্বা এবং ৪,০০০ পাউন্ড ওজনের স্ক্র্যামজেটটি ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৫০,০০০ ফুট উচ্চতায় বয়ে নেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের এয়ার ফোর্সের একটি প্লেন B-52 ব্যবহার করা হয়। প্রশান্ত মহাসাগরের উপর ওই উচ্চতা থেকে স্ক্র্যামজেটটি সফলতার সাথে হাইপারসনিক ফ্লাইট দেয়।

b-15

খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে, স্ক্র্যামজেটটি মাক ৪.৮ মাত্রার গতি অর্জন করে। পরে চূড়ান্ত সময়ে এটি মাক ৫ ছাড়িয়ে যায়। বিস্ময়কর ব্যাপার এই বিশাল হাইপারসনিক গতি নিয়েও এটি ৩ মিনিটের বেশি সময় ফ্লাইট দেয়। সময় এবং গতি দুটিতেই X-51A WaveRider রেকর্ড করে।

রেকর্ড তৈরি করা X-51A WaveRider পরীক্ষামূলক ফ্লাইটটি দেখতে পারবেন এখানে:

তথ্যসূত্র: দি টেক জার্নাল

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx