The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

মার্স ওয়ান মিশনের মঙ্গল গ্রহে অবতরণ দৃশ্য সরাসরি দেখা অনলাইনে

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ মার্স ওয়ান মিশনের আওতায় মঙ্গলগ্রহে স্থায়ী মানব বসতি স্থাপন করা হবে এটা পুরনো খবর। সম্প্রতি জানা যায়, পৃথিবী থেকেই মিশনটি সরাসরি দেখা যাবে।


TDT

মার্স ওয়ান মিশনটি নেদারল্যান্ড ভিত্তিক অলাভজনক ফাউন্ডেশন। ফাউন্ডেশনটির উদ্দেশ্য মঙ্গল গ্রহে স্থায়ী মানব বসতি স্থাপন। সেই লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি কাজ করে যাচ্ছে। ২০২৩ সালের মধ্যে মঙ্গল গ্রহে সর্বপ্রথম মানব কলোনি স্থাপন করবে তারা। এই মানব কলোনি-ই হবে সৌরজগতে পৃথিবীর বাইরে প্রথম মানব কলোনি।

  • মার্স ওয়ান প্রকল্পটি ৪০০,০০০ ডলারের একটি তহবিল ঘোষণা করেছে যা ২৫ জানুয়ারির মধ্যে লক্ষ্যমাত্রায় পৌছুবে।
  • তহবিল সংগ্রহ হবার পর, ২০১৬ এর মধ্যে একটি মিশন উৎক্ষেপণ করা হবে।
  • ২০১৮ সালে একটি সেটেলমেন্ট রোভার বা মহাকাশ যান অবতরণ করবে। অবতরণ ব্যবস্থাটি ৮ বার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা হবে। মানব অবতরণ নিরাপত্তা জনিত কারণে এমনটা করা হবে।
  • ১ যুগের মধ্যে মানব কলোনি স্থাপন করা লক্ষ্য।

Untitled-1

অবশেষে মঙ্গল গ্রহে বসবাস ও মানুষ প্রেরণের জন্য অর্থ সংগ্রহের কাজ শুরু শিরোনামে একটি লেখা ছাপানো হয়েছিল। সেখানে জেনেছিলাম, মঙ্গল গ্রহে মানুষ প্রেরণের উদ্দেশ্যে তহবিল গঠন করা হয়েছে। মার্স ওয়ানের Indiegogo তে খোলা একাউন্টে যে কেউ ১০ ডলার থেকে ২৫ হাজার ডলারের অর্থ সাহায্য পাঠাতে পারেন।

মার্স ওয়ান মানুষ পাঠাতে অনলাইনে সাধারণ আগ্রহী মানুষের আবেদনপত্রের আহ্বান করেন। এটি বিশ্বজুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় এবং মঙ্গলে যেতে এখন পর্যন্ত প্রায় ২,০০,০০০ মানুষ আবেদন করেছেন।

Untitled-2

যখন অনলাইনে ঘোষণা আসে মার্স ওয়ান পৃথিবীর বাইরে মঙ্গল গ্রহে সারা বিশ্ব থেকে আবেদন গ্রহণ করবে তখন প্রথম সপ্তাহ থেকেই এই প্রকল্পে আবেদন করতে মানুষ হুমড়ি খেয়ে পরে। মার্স ওয়ান তাদের আবেদনে পরিষ্কার করে বলে দেয় মঙ্গল গ্রহে যাওয়ার এই প্রকল্প কেবল এক মুখী। যারা সেখানে যাবেন তাদের আর পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা হবেনা! ফিরে আসার সম্ভাবনা না থাকলেও মানুষের মঙ্গল গ্রহে যাবার উৎসাহে ভাটা পরে নি।

এক মুখী মিশনের দুটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো নভোযান এবং স্যাটেলাইট। নভোযান নিরাপদে মঙ্গলপৃষ্ঠে অবতরণ করতে পারে সেই ব্যবস্থা থাকতে হবে। আর স্যাটেলাইট এর প্রয়োজন হবে যাতে মঙ্গল গ্রহ থেকে ডাটা দ্রুত গতিতে আদান প্রদান করা যায়। এর নিমিত্তে Surrey Satellite Technology Ltd (SSTL) নামে স্যাটেলাইট স্থাপন করা হবে।

সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয়টি হচ্ছে, মঙ্গল গ্রহে যাবার সুযোগ সবার মিলবে না। তবে যারা যাবেন তাদেরকে সরাসরি ভিডিও মাধ্যমে দেখা যেতে পারে। সাধারণ ইন্টারনেট থাকলেই নভোযানটি মঙ্গলগ্রহে অবতরণ করার রিয়েল টাইম ভিডিও দেখা যাবে, বলেন মার্স ওয়ানের সিইও ল্যান্স ড্রপ

তথ্যসূত্র: দি টেক জার্নাল, ডেইলি মেইল, মার্সওয়ান

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx