The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

ভয়েস অব আমেরিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে খালেদা জিয়া: জামায়াতের সঙ্গে জোট কৌশলগত

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ ভয়েস আমেরিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির ঐক্য কৌশলগত’।


Khaleda Z-09

জামায়াতের সঙ্গে যোগাযোগ, জোট বা ঐক্য বা আঁতাত কৌশলগত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে খালেদা জিয়া বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে আঁতাত বলেন, জোট বলেন বা ঐক্য বলেন- তা আওয়ামী লীগই আগে করেছে। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম, ‘৮৬ সালের নির্বচানে আমরা কেও যাবো না। তারপর মাঝ রাতে এরশাদের সঙ্গে আঁতাত করে নির্বাচনে গেল আওয়ামী লীগ। জামায়াতের সঙ্গে কথা বলে তাদেরকে নিয়ে গেল। নিরপেক্ষ সরকারের দাবিটা আওয়ামী লীগ এবং জামায়াতের। সে জন্য তখন আওয়ামী লীগ অনেক নাশকতা করেছে। দেশের অনেক ক্ষতি করেছে। আওয়ামী লীগ এখনও জামায়াতের সঙ্গে সেই যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে। বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের এই জোট সম্পূর্ণভাবে কৌশলগত।’

ভয়েস অব আমেরিকার ওয়াশিংটন স্টুডিও থেকে নেয়া সাক্ষাৎকারে বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে। সুতরাং, একাদশ সংসদ নিয়ে আলোচনা পরের বিষয়। তিনি বলেছেন, এছাড়া প্রমাণ হয়েছে আওয়ামী লীগের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। কারণ যেখানে ৫ ভাগও ভোট পড়েনি সেখানে কেমন করে ৪০ ভাগ ভোট হলো এ নির্লজ্জ মিথ্যাচারকে গুছাতে তাদের দু’দিন সময় লেগেছে বলে তিনি ওই সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেন।

বিএনপির দলীয় অবস্থান ও ১৮ দলের পরবর্তী ভাবনা তুলে ধরে বিএনপি চেয়ারপারসন সাক্ষাৎকারে আরও বলেন, প্রথম কথা আমি বলবো যে, ‘দেশে কোন নির্বাচন হয়নি। যেটা হয়েছে তা কারও কাছেই গ্রহণযোগ্য নয়। দেশের মানুষ সরকারকে সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে। যেখানে ১৫৩টি আসনে কেও অংশগ্রহণ করেনি, কন্টেস্ট করেনি, কেও আগ্রহীই নয় নির্বাচন করতে। সেখানে শুধু একদলীয় নির্বাচন ১৫৩টি আসনে হয়েছে। কোন প্রতিযোগিতা, প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়নি। দ্বিতীয়ত, যে ১৪৭টি আসনে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের কথা ছিল সেখানেও দেশের ও বিদেশের মিডিয়া কর্মীরা দেখেছেন, ভোটকেন্দ্রে মানুষই নেই। প্রিজাইডিং অফিসার কোন কোন জায়গায় ঘুমাচ্ছে। কোন কোন জায়গায় নিজেরাই ভোট দিচ্ছেন। ৪৭-৪৮টি ভোট কেন্দ্রে কোন ভোটার ভোট দেয়নি। অনেক কেন্দ্র বন্ধ। তারপরও যেটা হলো তাতে ৫ ভাগও হবে না। তো এতে কি হলো। মানুষের এটাই কি রায় জনগণের মতামতের কোন প্রতিফলন এখানে হয়নি।’ বেগম খালেদা জিয়া বলেন, ‘কাজেই এটাকে কোন ইলেকশন আমি বলবো না। এটা ভাগাভাগির নির্বাচন বলতে পারেন। তারা নিজেরা সিট এবং ক্ষমতা ভাগাভাগি করেছে।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের জনগণ সত্যিকারের একটা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায়। যেখানে সকল দলের অংশগ্রহণ থাকবে। সেরকম একটি নির্বাচন দেখতে চায়। সেই নির্বাচনটা হতে হবে একটা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে।’

বেগম খালেদা জিয়া ভয়েস অব আমেরিকাতে আরও বলেন, ‘মানুষ এখন আরও পরিষ্কার ৫ জানুয়ারির পরে, যে আওয়ামী লীগের অধীনে কোন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না। এই নির্বাচন কমিশন যে একটা মেরুদণ্ডহীন বা দলীয় সরকারের মতো কাজ করেছে, তা একদম পরিষ্কার। যেখানে ৫ ভাগও ভোট পড়েনি সেখানে কেমন করে ৪০ ভাগ ভোট হলো এটা একটা নির্লজ্জ মিথ্যাচার। এজন্য তাদের দু’দিন সময় লেগেছে। সব ঠিকঠাক করে, গুছিয়ে কিভাবে বলবে তা ঠিক করে। কাজেই এটা পরিষ্কার এবং জাতি এটাকে প্রত্যাখ্যান করেছে।’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx