ঘুষ বন্ধের জন্য এক কৃষকের মাইকিং!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ঘুষ-দুর্নীতি আমাদের বর্তমান সমাজে ছেয়ে গেছে। যেখানেই যাওয়া যায় সেখানেই শুধু ঘুষ। ঘুষ না দিলে কোনো কাজ হয় না। এমন এক পরিস্থিতিতে এক কৃষক ঘুষ বন্ধের জন্য মাইকিং করে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন।

A farmer's announcement to stop bribery

ঘটনাটি লালমনিরহাটের। সেখানকার এক কৃষক ঘুষ বন্ধের জন্য মাইকিং করে সকলের সহায়তা কামনা করেছেন। ভূমি কর্মকর্তাদের লাগামহীন ঘুষ দাবিতে অসহায় হয়ে পড়েছেন এক বৃদ্ধ কৃষক। অবশেষে মাইক নিয়ে রাস্তায় নেমেছেন। তিনি ঘুষখোর কর্মকর্তাদের অফিসে তালা লাগানোর আহ্বান জানিয়ে উপজেলায় মাইকিং করেছেন। গত মঙ্গলবার রাত ৯ টার দিকে লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচায় মাইকিং শুরু করেন ওই কৃষক।

রাজ মোহাম্মদ নামে ৬৫ বছর বয়সী ওই কৃষক মাইকে বলেন, ‘সবাই এখন ঘুষখোর। কেও রাখে না কৃষকের খবর। সবাই আসুন ঘুষখোর অফিসারদের অফিসে তালা লাগাই।’

ঘুষ বিরোধী প্রচারণার মাইকিং করায় বিষয়টি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। মাইকিংকালে ওই কৃষক আরো বলেন, ‘ঘুষ না দিলে কাজ হবে না, কাজ করতে হলে টাকা দিতে হবে। অভিযোগ করলেও বিচার নেই। আসুন- ঘুষখোর অফিসারদের অফিসে তালা লাগাই।’

কৃষক রাজ মোহাম্মদ সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘তার ১০টি খতিয়ানে ৮ একর জমির খাজনা দেওয়ার জন্য দীর্ঘ দিন ধরে ধরনা দিচ্ছেন মহিষখোচা ইউনিয়ন ভূমি অফিসে। ওই অফিসের পিয়ন হতে শুরু করে তহসিলদার পর্যন্ত সবাই তার কাছে ঘুষ চেয়েছেন। ঘুষ না দেওয়ায় তার কোনো কাজ হয়নি।’

কৃষক রাজ আরও জানান, ‘ওই ভুমি অফিসে দুই টাকার ডিসিআর (রসিদের কার্বন কপি) কাটলে ঘুষ দিতে হয় ৩শ’ টাকা। এর আগে ১০ হাজার টাকা নিয়ে মাত্র ৭৫০ টাকার চেক দেন ভূমি অফিসের উপসহকারী ভুমি কর্মকর্তা জোবায়দুল ইসলাম।’

মহিষখোচা ইউপি ভূমি অফিসে ঘুষের রাজত্ব কায়েম হয়েছে দাবি করে বৃদ্ধ কৃষক রাজ মোহাম্মদ জানান, ‘ভলিয়ম বই দেখতে গেলেও ঘুষ দিতে হয় ৮০ হতে ১শ’ টাকা। মহিষখোচা ইউপি ভূমি অফিসের অনিয়ম আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে পরপর দুটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হলেও কোনো কাজ হয়নি- এমন দাবি করেছেন কৃষক রাজ মোহাম্মদ।

বারং বার অভিযোগ করেও কোনো ফল না পাওয়ায় ঘুষখোর উপ-সহকারী ভুমি কর্মকর্তার (তহসিলদার) বিরুদ্ধে নিজেই মাইকিং করে সর্বস্তরের জনগণকে আহ্বান জানাচ্ছেন এই বৃদ্ধ অসহায় কৃষক। আর তাই রিকশায় মাইক লাগিয়ে শহর-বন্দর, গ্রাম-গঞ্জ, হাট-বাজার সর্বত্রই প্রচার শুরু করেছেন তিনি।

অবশ্য ওই কৃষকের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মহিষখোচা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপসহকারী কর্মকর্তা জোবায়দুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, ঘুষ বিরোধী প্রচারণায় প্রথমে জনগণ বিস্ময় প্রকাশ করলেও আদিতমারী উপজেলার হাজারো মানুষ এই প্রচারণার সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছে। জানা যায়, বৃদ্ধ রাজ মোহাম্মদ লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার পলাশী ইউনিয়নের বোনচৌকি গ্রামের মৃত বাবর আলীর পুত্র।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...