বাড়তি ফি ৭ দিনের মধ্যে ফেরত না দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: শিক্ষামন্ত্রী

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সরকার বারংবার সাবধান করা সত্বেও যারা সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বাড়তি ফি আদায় করেছে সেই বাড়তি ফি ৭ দিনের মধ্যে ফেরত না দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে ঘোষণা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

not returned within 7 days

সম্প্রতি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে বেতন ও ফি হিসেবে এবং এসএসসির ফরম পূরণের সময় আদায় করা বাড়তি টাকা ফেরত দিতে ৭ দিন সময় বেঁধে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেছেন, ওই টাকা শিক্ষার্থীদের ফেরত দিয়ে শিক্ষা বোর্ডকে সেটি অবহিত করতে হবে। ৭ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, নতুন বেতন কাঠামোতে সরকারি চাকুরেদের বেতন বাড়ার যুক্তি দেখিয়ে ঢাকা এবং চট্টগ্রামের অধিকাংশ বেসরকারি স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের বেতন নতুন বছরের শুরুতে ব্যাপক হারে বাড়ানো হয়। এর প্রতিবাদে রাস্তায় নামেন অভিভাবকরা। এই প্রেক্ষাপটে গত ১৭ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় বর্ধিত বেতন ও ফি আদায় না করার নির্দেশ দিয়েছিল।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আদেশে বলা হয়, সরকারের নির্দেশনা ছাড়াই বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে বর্ধিত হারে মাসিক বেতন এবং অন্যান্য ফি আদায় করা হচ্ছে। যে কারণে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড (মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি) প্রবিধানমালা অনুযায়ী সরকারের নির্দেশনা সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্যদকে বেতন এবং ফির হার নির্ধারণ করতে হবে বলে আদেশে জানানো হয়।

এমন এক প্রেক্ষাপটে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বর্ধিত বেতন এবং অন্যান্য ফি আদায় অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেওয়া হলো। ইতিপূর্বে গতবছর ১ ডিসেম্বর হাইকোর্টের এক আদেশে এসএসসির ফরম পূরণে বোর্ড নির্ধারিত ফির চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায়কারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। ফরম পূরণে বাড়তি ফি আদায়ের বিষয়টি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ওই রুল জারি করেছিল।

আদেশে বলা হয় যে, যেসব শিক্ষার্থীর নিকট হতে বোর্ড নির্ধারিত ফির বাড়তি অর্থ আদায় করা হয়েছে, তারা নিজ নিজ শিক্ষাবোর্ডে এই বিষয়ে লিখিতভাবে জানাবে। এই বিষয়ে বোর্ডগুলোকে অতিবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে আদেশ দেয় আদালত। কি ব্যবস্থা নেওয়া হলো তা জানিয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যানদের প্রতিবেদন দিতেও নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছেন, কারা কারা টাকা নিয়েছে তাদের তালিকা আমাদের নিকট রয়েছে। এরপরও আমরা সময় দিচ্ছি, যারা ফেরত দেবে তাদের নাম তালিকায় রাখা হবে না। কিন্তু ৭ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Advertisements
Loading...