বিলুপ্তির পথে ঐতিহাসিক ‘লকমা রাজবাড়ি’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শুভ সকাল। আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ মার্চ ২০১৬ খৃস্টাব্দ, ৩ চৈত্র ১৪২২ বঙ্গাব্দ, ৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৭ হিজরি। দি ঢাকা টাইমস্ -এর পক্ষ থেকে সকলকে শুভ সকাল। আজ যাদের জন্মদিন তাদের সকলকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা- শুভ জন্মদিন।

Lokma Rajbari-01

জয়পুরহাট হতে উত্তরে পাঁচবিবিতে লকমা গ্রাম। এই গ্রামের নামেই ঐতিহাসিক স্থানটির নামও করা হয়েছে ‘লকমা রাজবাড়ি’। এটি এখন বিলুপ্তির পথে। তবে কিছু তরুণ এই ঐতিহাসিক স্থানটিকে টিকিয়ে রাখার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করে। তারা এই লকমা রাজবাড়ির একটি কমিটি গঠন করে।

সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য নানা প্রকার ফুলের গাছ লাগানো হয় এই স্থানে। এতে প্রবেশের মূল্য ধরা হয় মাত্র ৫ টাকা । জানা গেছে, হাজার বছর আগে নির্মাণ কাজ শেষে এ প্রাসাদটির নাম দেওয়া হয় ‘লকমা রাজবাড়ি’। আজ পর্যন্ত এ নামেই পরিচিতি লাভ করছে এই স্থানটি।

জানা গেছে, বংশানুক্রমে আজও এর মালিক বিদ্যমান রয়েছেন। রাজবাড়ির মোট কক্ষের সংখ্যা ছিল ১৭টি। তবে অধিকাংশ কক্ষই ছিলো ঘুটঘুটে অন্ধকার। প্রধান প্রাসাদকে ঘিরে এর পূর্ব পার্শ্বে রয়েছে আরও একটি ছোট প্রাসাদ। আর এই ছোট প্রাসাদেই চৌধুরীর দূতরা রাখতো এক পাল হাতি। দেশ বিভাগের পর এই রাজবাড়ির কিছু অংশ ভারতের মধ্যে চলে যায়। তারমধ্যে রয়েছে একটি আশ্চর্য পুকুর এবং একটি কালী মন্দির। পুকুরটি ছিল রাজবাড়ির পশ্চিম উত্তর কর্নারে। রাজবাড়ির পাশে রয়েছে হাজার বছরের পুরাতন একটি মসজিদও।

ছবি: www.bd-traveler.com এর সৌজন্যে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...