‘জঙ্গি’ রোহানের বাবা জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ গুলশানের ক্যাফেতে ‘হামলাকারী’ হিসেবে চিহ্নিতদের একজন রোহান ইবনে ইমতিয়াজের বাবা এস এম ইমতিয়াজ খান জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

'Militant' rohan father apologizes to nation

গুলশানের ঘটনার পর যে ৫ জনের ছবি সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ আইএসের বরাতে প্রকাশ করে, তার মধ্যে ছিলো এই রোহান ইবনে ইমতিয়াজ। সংবাদ মাধ্যমে ছবি প্রকাশের পর তার পরিচয় নিশ্চিত হয়।

ছবি প্রকাশের পর পরিবারও ছবি দেখে চিনতে পারে। এর পর নিজেকে একজন ‘ব্যর্থ পিতা’ হিসেবে বর্ণনা করে ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা (মঙ্গলবার) বলেন, ‘এটা খুবই দুঃখজনক, কষ্টকর ও বিব্রতকর। ফেইসবুক এবং টিভিতে আমি জানতে পারলাম যে আমার ছেলে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত। আমি একজন ব্যর্থ পিতা। আমি আপনাদের মাধ্যমে সকলের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

এস এম ইমতিয়াজ খান বলেন, ‘ক্লাস নাইনে থাকতে যে ছেলে তেলাপোকা মারতে পারতো না, সেই ছেলের হাতে এতোবড় অস্ত্র! এসব অস্ত্র কোথা থেকে আসে? তাদের কারাই বা ট্রেনিং দেয়, অর্থদাতা কে? তাদের খুঁজে বের করতে আমি সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

এস এম ইমতিয়াজ খান বাবুল সদ্য বিলুপ্ত অবিভক্ত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের উপ-মহাসচিবের দায়িত্বে রয়েছেন। এ ছাড়াও বাংলাদেশ সাইক্লিস্ট ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারি পদে রয়েছেন তিনি।

তার ছেলে রোহান ইমতিয়াজ স্কলাসটিকার সাবেক ছাত্র, তার মা নামি এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই গণিতের শিক্ষক। ঘটনার পর বাবা ও মায়ের সঙ্গে তার ছবির পাশে সাইটের সেই ছবি বসিয়ে ফেইসবুকে তার পরিচিতজনরা দুই ছবির চেহারায় মিল ধরিয়ে দিয়েছেন।

তবে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার পর কমান্ডো অভিযানে নিহত যে ৫ জনের ছবি পুলিশ গত শনিবার ‘হামলাকারী’ হিসেবে প্রকাশ করেছিল, সেখানে রোহান নেই বলে তার স্বজনরা সে সময় জানিয়েছিলেন।

মঙ্গলবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এ বিষয়ে জানতে চাইলে তার বাবা ইমতিয়াজ বাবুল বলেছেন, ‘রোহানের মৃতদেহ সিএমএইচে রয়েছে বলে আমাদের জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। লাশ কবে দেওয়া হবে সে ব্যাপারে কিছুই বলেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।’

তবে রোহানের পরিবারের এক আত্মীয় বলেছেন, ‘জানতে পেরেছি, মুখমণ্ডল বিকৃত হওয়ায় ছবি প্রকাশ করা হয়নি।’

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার বাংলাদেশের ইতিহাসে জঘন্যতম ওই জঙ্গি হামলার ঘটনায় ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করে রোহানের মতো পাঁচ উগ্রপন্থি।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...