The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কম দামী সান গ্লাস আপনার চোখের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে

কম দামী সান গ্লাস ব্যবহারের কারণে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হয়

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সান গ্লাস পরা মানে নিজের মধ্যে একটু স্মার্টনেস ভাব চলে আসে। নিজেকে অন্যদের থেকে একটু বেশি আধুনিক মনে হয়। শুধু স্মার্টনেস নয় সেই সাথে চোখকে পোকা মাকড় এবং সূর্যের ক্ষতিকর অতি বেগুনী রশ্মির হাত থেকে রক্ষা পেতেও আমরা সান গ্লাস ব্যবহার করি।

বিশেষ করে রোদে কোথাও যাওয়ার সময় এবং মটর সাইকেল বা সাইকেল চালানোর সময় রাস্তার ধুলাবালি এবং পোকা-মাকড়ের হাত থেকে রক্ষা পেতে সান গ্লাসের ব্যবহার দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে আসল কথা হচ্ছে আপনি যে সান গ্লাস ব্যবহার করেন তা প্রকৃতপক্ষেই আপনার চোখকে রক্ষা করছে নাকি নানা জটিল সমস্যা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হচ্ছে?

আজ আমরা জানবো কম দামী সান গ্লাস ব্যবহারের কারণে আমাদের উপকার হয় নাকি ক্ষতি হয়।

উপকার সমূহঃ

১। সান গ্লাস কম দামী হোক আর বেশি দামী হোক সকল সান গ্লাসই ধুলা-বালি থেকে চোখকে রক্ষা করে।

২। মটর সাইকেল বা সাইকেল চালানোর সময় পোকা- মাকড়ের হাত থেকে চোখকে রক্ষা করতে যে কোন দামের চশমাই উপকারি।

৩। নিজেকে স্মার্টনেস লাগে। ফলে মনের মধ্যে প্রফুল্লতা বিরাজ করে।

এবার আসা যাক কম দামী চশমার ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে-

১। কম দামী চশমাতে ব্যবহার করা হয় নরমাল প্লাস্টিক, যা কোনভাবেই আমাদের চোখকে সূর্যের ক্ষতিকর অতি বেগুনী রশ্মি থেকে রক্ষা করতে পারে না। শুধু মাত্র পলিকার্বোনেট লেন্সই সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মি আটকাতে পারে। তাই এই সকল কম দামী সান গ্লাস ব্যবহার করে হাজার চেষ্টা করেও চোখকে রক্ষা করা যায় না।

২। কম দামী সানগ্লাসে নরমাল প্লাস্টিক ব্যবহার করায় এই চশমা ব্যবহার করে সঠিক দুরুত্ব বোঝা যায় না। সমতল জায়গাকেও উচু নিচু মনে হয়। সামনের বিভিন্ন বস্তু কাছে থাকলেও দুরে আবার দুরে থাকলেও কাছে মনে হয় বলে, মটর সাইকেল বা সাইকেল চালানোর সময় মারাত্বক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

৩। কমদামী সান গ্লাসে সঠিক দুরুত্ব বজায় না থাকায় অস্বাভাবিকভাবে চোখের পাওয়ার হ্রাস-বৃদ্ধি পেতে পারে।

৪। এই সানগ্লাস অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে অকালেই চোখে ছানি পড়ে যেতে পারে। হঠাৎ করে চোখের কর্নিয়া শুকিয়ে যেতে পারে।

৫। মাথা ব্যাথা সহ মাথা ঘোরার মত বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৬। এমন কম দামী সান গ্লাস অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে ‘রিফ্রাক্টিভ এরর’ বা চোখের প্রতিসারক সমস্যা বহুগুণ বেড়ে যায়। অক্ষিগোলকের অস্বাভাবিক আকার এবং বক্রতার কারণে প্রতিসারক সমস্যা দেখা যায়। এই সমস্যার কারণে দৃষ্টি শক্তি ঝাপসা হয়ে যেতে পারে।

৭। এমনকি এই জাতীয় চশমা আইলিড’ ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও তৈরি হয়।

তাই আজ থেকে এই জাতীয় কম দামী সান গ্লাস ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। কিছু টাকা সাশ্রয় করতে গিয়ে এমন বড় ধরণের বিপদ ডেকে আনবেন না।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...