The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এখন মোবাইলে চলবে অফিস

স্মার্টফোনের নানাবিধ অ্যাপসের ব্যবহারের ফলে খুব সহজেই কেনাকাটা থেকে শুরু করে মোবাইল ব্যাংকিং ও বিভিন্ন খবরা-খবর সম্পর্কে জানতে পারি

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আমাদের এই স্মার্টফোনের যুগে খুব সহজেই নানাবিধ অ্যাপসের মাধ্যমে আমরা আমাদের জীবন ব্যবস্থাকে সহজ ও কর্ম ব্যবস্থাকে আরামদায়ক করে তুলেছি। তবে শুধু ঘরের কাজ নয় এখন থেকে মোবাইলে চলবে অফিস।

এখন মোবাইলে চলবে অফিস 1

স্মার্টফোনের নানাবিধ অ্যাপসের ব্যবহারের ফলে খুব সহজেই কেনাকাটা থেকে শুরু করে মোবাইল ব্যাংকিং ও বিভিন্ন খবরা-খবর সম্পর্কে জানতে পারি। আমরা এই সকল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে শেয়ার বাজারের খবর সম্পর্কে অবগত হতে পারে নিমিষেই। স্মার্ট ফোনের সকল অ্যাপস ব্যবহার করে খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিভিন্ন কার্য সম্পাদন করা সম্ভব হয়। এসকল এপ্লিকেশন ব্যবহার ফলে আমাদের সময় বেঁচে যায়। বর্তমানে সফটওয়্যার খাতে বাংলাদেশের সমস্ত অফিসের গুরুত্বপূর্ণ কাজ থেকে শুরু করে অফিস ম্যানেজমেন্ট করা যায় এমন একটি সফটওয়্যার সম্প্রতি বাজারে এসেছে। এই এপ্লিকেশন ব্যবহার করে খুব সহজেই আমরা আমাদের অফিসের যাবতীয় কাজ করতে পারি খুব অল্পসময়ের মধ্যে।

অফিস খাতে ব্যবহৃত অ্যাপ্লিকেশনটি আমাদের সময়কে সাশ্রয় করবে এবং এটি প্রযুক্তির সদ্ব্যবহার হিসেবে গণ্য হবে বলে ধারণা করছেন উদ্ভাবকরা। আন্তর্জাতিক খ্যাতনামা সফটওয়্যার ডিজাইনার মান্না মাহমুদ বাংলাদেশের এই অ্যাপ্লিকেশনের উদ্যোক্তা। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এই ডিজাইনার ইউরোপের বিভিন্ন সরকারি ও জাতীয় প্রতিষ্ঠানে মুল সফটওয়্যার আর্কিটেক্ট হিসেবে সফলতার সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করে চলেছেন দীর্ঘদিন যাবৎ। অফিসের সাহায্যকারী হিসেবে তিনি এমন একটি বিজনেস সফটওয়্যার তৈরি করেছেন যেটি হুবহু অফিসের সকল কাজ করতে পারবে। কোম্পানিও সারাদেশের সকল কর্মীদের ডাটা ও কাজের অগ্রগতি, রিয়েল টাইম পর্যবেক্ষণ করে অনুমোদন করা সম্ভব। সকল কর্মীদের ডাটা সংরক্ষণের পাশাপাশি এটি খুব সহজেই কর্মীদের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

এই এপ্লিকেশন দ্বারা আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি, ব্যান্ড, দপ্তর, বিভাগ, এবং প্রত্যেকটি সেকশন এর কার্যপদ্ধতি বানানো সম্ভব। এই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের তথ্য ফর্ম নিজেদের মতো করে অল্প সময়ের মধ্যে তৈরি করা সম্ভব হবে এবং এর জন্য প্রয়োজন পড়বে শুধু একটি স্মার্টফোনের। এই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের জন্য ও এর দ্বারা কার্যপদ্ধতি পরিচালনার জন্য কোন প্রকার ভারী হার্ডওয়্যার বা ডিভাইস এর প্রয়োজন পড়বে না এবং পাশাপাশি এর ব্যবহারের জন্য প্রযুক্তির ভাল ব্যবহার ও জানার কোন প্রয়োজন নেই। এই যুগান্তকারী সফটওয়্যারটির নাম ‘ক্লাউড অফিস ডিজিটাল ওয়ার্কপ্লেস ।

এটি মূলত কোম্পানি ক্লাউড অফিস যা আমাদের দেশের মানুষ বর্তমানে এ সকল সফটওয়্যার ব্যবহার ও কেনায় বিভিন্ন ঝামেলার শিকার হন। অনেক ব্যবসায়ীরা মনে করেন সফটওয়্যার কিনবে এবং দেখা যায় বিদেশ থেকে এর আমদানি করা হয় পাশাপাশি বাস্তবায়ন হতে লেগে যায় বছরের পর বছর এবং এ কারণে তারা অনেক সমস্যার সম্মুখীন হন। বিদেশের এ সকল সফটওয়্যার ব্যবহারে নানাবিধ সমস্যার শিকার হন দেশীয় কর্মকর্তাগণ। সফট্ওয়ারে সকল বাধ্যবাধকতার কারণে ব্যবসায় পরে বিরূপ প্রভাব। এসব সফটওয়্যার ব্যবহার করার সময় এর সাথে সামঞ্জস্যকারী হার্ডওয়ারের প্রয়োজন পরে যা হতে পারে বা ব্যায়বহুল। এই সকল সফটওয়্যার রক্ষণাবেক্ষণ ও ব্যবহার খুবই ব্য্যবহুল ও ঝামেলাকর হয়ে থাকে।

আমাদের এই আধুনিক যুগে যেখানে সকল ভালো জিনিসের সলিউশন এখন কমে যাচ্ছে ঠিক এমন একটি সময় এই সফটওয়্যারটি হতে পারে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানির জন্য খুবই কার্যকরী। তবে আমাদের এই বিজনেস সফটওয়্যারটি দিয়ে খুব সহজে একটি মোবাইল ডিভাইস দিয়ে সকল প্রকার কাজ ম্যানেজ করা যায়। সফটওয়্যার জটিলতার কারণে অনেক বড় বড় কোম্পানি সুবিধা ভোগ করতে পারেন না সে ক্ষেত্রে দেখা যায় যারা আইটিতে অথবা প্রযুক্তি ব্যবস্থায় একটু কম পারদর্শী তাদের হাতে সহজে বিজনেস সফটওয়্যার হ্যান্ডেল করা সম্ভব। এবং এটি একটি মোবাইল দ্বারা সম্পূর্ণভাবে ম্যানেজ করা যাবে অল্প সময়ে। সম্প্রতি আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন উন্নত দেশেই ট্রেন শুরু হওয়ার পাশাপাশি ব্যবহার চলছে খুবই আলোচিত ভাবে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...