The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনার সংক্রমণ হতে আপনাকে বাঁচাবে জুতা!

ইতিমধ্যে অফিস-আদালত, শপিংমল খুলেছে। আগেই চালু রয়েছে নিত্যপণ্যের কাঁচা বাজার। তবে এসবে যেতে পথে-ঘাটের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাটাই যেনো অসম্ভব!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনায় বিপর্যস্ত পুরো বিশ্বের অর্থনীতি। কতোদিন এভাবে সম্ভব? তাই অর্থনীতি চাঙ্গা করতে লকডাউন উঠিয়ে নিচ্ছে অনেক দেশ। এবার বানানো হলো করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধী জুতা!

করোনার সংক্রমণ হতে আপনাকে বাঁচাবে জুতা! 1

ইতিমধ্যে অফিস-আদালত, শপিংমল খুলেছে। আগেই চালু রয়েছে নিত্যপণ্যের কাঁচা বাজার। তবে এসবে যেতে পথে-ঘাটের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাটাই যেনো অসম্ভব! তবে এই অসম্ভবকে সম্ভব না করলে যে বিপদ আরও বাড়তে পারে। এই সমস্যা দূর করতে এলো নতুন ধরনের এক জুতা!

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে এক অভিনব উপায় কাজে লাগিয়ে সমাধান বের করলেন রোমানিয়ার এক জুতার কারিগর। পায়ে পায়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে তিনি বানিয়ে ফেলেছেন প্রায় আড়াই ফুট (২৯.৫৩ ইঞ্চি) লম্বা এক জুতা! এই জুতা পরে দু’জন মুখোমুখি দাঁড়ালে প্রায় দেড় মিটারের মতো দূরত্ব তৈরি হবে। অর্থাৎ, প্রায় ৫৯ ইঞ্চি (প্রায় ৫ ফুট) দূরত্ব তৈরি হবে দু’জনের মধ্যে।

এই শারীরিক দূরত্ব করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য যথেষ্ট বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। ভিড়ের মধ্যে হাঁটলেও এই জুতা বাকিদের থেকে অনেকটাই দূরত্ব তৈরি করে দেবে। সামনের দিকে দেখতে অনেকটাই লম্বা। এই জুতার সাইজ ইউরোপিয়ান হিসেব মতে ৭৫ নম্বর।

রোমানিয়ার গ্রেগর লুপ নামে এক ব্যক্তি এই জুতো বানিয়েছেন। তার দাবি হলো, ‘এখন খুবই দরকারি হলেও অনেকেই সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করে চলতে পারছেন না। অনেকেই কাছাকাছি এসে পড়ছেন। তা থেকে বাঁচার উপায় হলো সাইজ হিসাবে বলতে গেলে এটি ৭৫ নম্বর সাইজের জুতা। পথে-ঘাটে বেরিয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার একেবারে মোক্ষম উপায় হলো এটি!

দেখতে অদ্ভূত হলেও রোমানিয়ায় নাকি ইতিমধ্যেই এই জুতোর বেশ চাহিদাও তৈরি হয়েছে। বিশেষ এই জুতোটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সোশ্যাল ডিসটেন্সিং শু’!

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...