The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ইউটিউব চ্যাটের মাধ্যমে টাকা আয়ের সুযোগ!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ইউটিউব এবার চ্যাটের মাধ্যমে টাকা আয়ের সুযোগ করে দিচ্ছে! ইউটিউবের ওই ফিচারটির নাম ‘সুপার চ্যাট’। এই ফিচারটির মাধ্যমেই আয় করা সম্ভব!

অনেকেই হয়তো ‘সুপার চ্যাট’ নামটি কখনও শোনেননি। ‘সুপার চ্যাট’ এমন এক ইউটিউবের ফিচার, যার মাধ্যমে খুব সহজেই আয় করা সম্ভব। ফিচারটির সাহায্যে কোনও ইউটিউব লাইভে দর্শকরা অর্থের বিনিময়ে কমেন্টও করতে পারেন। দর্শকদের দেওয়া এই অর্থ, যিনি কনটেন্ট ক্রিয়েটর তিনিই পাবেন।

ইউটিউবের যে কোনও লাইভে দর্শকরা কমেন্ট করে থাকেন এবং সেগুলো লাইভে আসা ব্যক্তির নজরে সব সময় পড়েও না। তবে এই ফিচার যাকে সুপার চ্যাট বলা হচ্ছে, এর মাধ্যমে অর্থের বিনিময়ে কমেন্ট করলে সেটি অন্যদের কমেন্ট হতে সম্পূর্ণ পৃথকভাবে নজরে আসবে। ওই কমেন্টের রঙ হবে ভিন্ন এবং সেটিই পিন হয়ে থাকবে। যে কারণে সুপার চ্যাটের মাধ্যমে করা কমেন্ট ওই কনটেন্ট ক্রিয়েটরের নজরে আসার সম্ভাবনাও অনেক বেশি। যাদের বয়স ১৮ বছরের ওপরে শুধুমাত্র তারাই ইউটিউবের এই ফিচারটি ব্যবহার করতে পারবেন।

মূলত ২০১৭ সালের শুরুর দিকে এই সুপার চ্যাট চালু হয়। বর্তমানে বিশ্বের অনেক দেশেই এই ফিচারটি চালু থাকলেও বাংলাদেশে এখনও চালুই হয়নি। তবে আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতে অনেকদিন আগেই এটি চালু হয়েছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশে অর্থ উপার্জনের মাধ্যম হিসেবে এটি বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করতে সমর্থ হয়েছে।

ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে দর্শকরা এই ফিচারটি ব্যবহার করতে পারবেন। অপরদিকে কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবে সুপার চ্যাট ব্যবহার করতে হলেই ইউটিউবের নির্দিষ্ট করে দেওয়া অঞ্চলের বাসিন্দা ও বয়স অবশ্যই ১৮-এর বেশি হতে হবে। ‘এজ রেস্ট্রিক্টেড’, ‘প্রাইভেট’ এবং ‘মেড ফর কিডস’ আইটেমের ক্ষেত্রে এই ফিচারটি কার্যকরী হবে না।

যেভাবে কাজ করে এই ‘সুপার চ্যাট’

কোনো কনটেন্ট ক্রিয়েটর লাইভে এলে দর্শক হিসেবে আপনি চ্যাট উইন্ডোর পাশে একটি ‘ক্যাশ সিম্বল’ কিংবা ডলারের প্রতীক দেখতে পারবেন। সেখানে ক্লিক করেই ভিডিও ক্রিয়েটরকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকাও দেওয়া যাবে এবং এই টাকার বিনিময়েই কমেন্ট সকলের ওপরে থাকবে। এছাড়াও টাকার বিনিময়ে করা কমেন্টের রঙও হবে একেবারে ভিন্ন, যেনো খুব সহজেই সেটি কনটেন্ট ক্রিয়েটরের চোখে পড়ে।

অপরদিকে লাইভে আসা ব্যক্তি ‘সুপার চ্যাট’ অপশনে ক্লিক করলেই টাকার বিনিময়ে করা সব কমেন্ট একসঙ্গে তখন দেখতে পাবেন। এতে ওইসব কমেন্টের উত্তর দেওয়া খুব সহজ হবে। তবে বিষয়টি এমন নয় যে, সুপার চ্যাটে কমেন্টের উত্তর দেওয়া আপনার বাধ্যতামূলক। সেটি সম্পূর্ণ নির্ভর করছে কনটেন্ট ক্রিয়েটরের ওপরেই।

তবে দর্শক হিসেবে সুপার চ্যাট ব্যবহারের ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে অর্থ পরিশোধ করতে হবে। যে কোনও লাইভে আপনার কমেন্ট অন্তত ৫ ঘণ্টা পর্যন্ত সবার ওপরে থাকবে। কমেন্ট কতোক্ষণ পিনড থাকবে তা নির্ভর করবে কি পরিমাণ অর্থ প্রদান করবেন ঠিক তার ওপর। মনে রাখতে হবে যে, কোনও লাইভে আপনি চাইলেই যে কোনও কমেন্ট করতে পারবেন না। কারণ হলো, কনটেন্ট ক্রিয়েটর ইচ্ছে করলেই কিছু কি-ওয়ার্ড ব্ল্যাকলিস্টে রাখতে পারেন। ওই ধরনের কি-ওয়ার্ড আপনি ব্যবহার করতে চাইলেও সেটি আর সম্ভব হবে না।

কে পাবেন সুপার চ্যাটের এই অর্থ?

ইউটিউব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে, সুপার চ্যাটের বেশিরভাগ অর্থই কনটেন্ট ক্রিয়েটরই পাবেন। এটি মূলত ইউটিউব হতে অর্থ উপার্জনের আরেকটি মাধ্যম হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে। অবশ্য সুপার চ্যাট হতে কিছু অর্থ স্বাভাবিকভাবেই ইউটিউব কর্তৃপক্ষ নিয়ে নেয়।

বাংলাদেশে কবে চালু হবে সুপার চ্যাট?

বাংলাদেশে সুপার চ্যাট কবে চালু হবে সেই বিষয়ে কোনও তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি। এদিকে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ নতুন করে আরও কোনও দেশে ফিচারটি চালু করবে কি না, সেটিও এখনও নিশ্চিত নয়। তবে প্রযুক্তি সংশ্লিষ্টদের ধারণা যে, হয়তো তাড়াতাড়িই বাংলাদেশে সুপার চ্যাট ফিচারটি চালু হবে। এতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ইউটিউবারদের আয়ের নতুন একটি পথ হতে পারে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...