The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

যে ব্যায়াম করলে ব্যাক পেইন হতে মুক্তি পেতে পারেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অনেকেরই ব্যাক পেইন অর্থাৎ কোমরের ব্যথা বা মাজার ব্যথা হতে পারে। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বার্ধক্যে এই সমস্যা আরও প্রবল আকার ধারণ করে। যে ব্যায়াম করলে আপনি ব্যাক পেইন হতে মুক্তি পেতে পারেন।

যে ব্যায়াম করলে ব্যাক পেইন হতে মুক্তি পেতে পারেন 1

কখনও একটানা চেয়ারে বসে থাকলে কিংবা দূরে কোথাও ঘুরতে গেলে এমনটি হতে পারে। শুধু ওষুধ খেলেই যে এই সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে, তা কিন্তু নয়। কিছু ব্যয়াম করলে এই সমস্যা হতে আপনি মুক্তি পেতে পারেন।

কেন হয় ব্যাক পেইন?

নানা রকম কারণে ব্যাক পেইন হতে পারে। মূলত মেরুদণ্ড কিংবা স্পাইন-সম্পর্কিত ব্যথাকেই আমরা ব্যাক পেইন হিসেবে দেখে থাকি। স্নায়ু, পেশি, হারজোড় ইত্যাদি কারণে ব্যাক পেইন দেখা দিতে পারে। মেরুদণ্ডের পেশি, স্নায়ু, হাড়ের জোড়া যদি সঠিক অবস্থানে সঠিকভাবে কাজ না করে, তাহলে ব্যথা সৃষ্টি হতে পারে।

তবে এই ব্যাক পেইন থেকে মুক্তি পেতে হলে প্রতিদিন সকালে মাত্র কয়েক মিনিট ব্যায়াম করলেই সমাধান হতে পারে।

কীভাবে ব্যায়াম করবেন?

প্রথমে দরজার পাল্লায় দুই হাত রেখে দাঁড়ান। তারপর সামনের দিকে এক পায়ের হাঁটু ভাঁজ করতে থাকুন যতোক্ষণ না কাঁধের পেশিতে টান পড়ছে। এভাবে ৩০ সেকেন্ড থাকুন। এরপর অন্য পায়ে রিপিট করুন। এভাবেই ৩-৪ বার করুন।

এবার দেওয়ালে হাত রেখে দাঁড়ান। এবার এক পা পিছিয়ে রাখুন। খেয়াল রাখবেন যাতে সামনের পায়ের হাঁটু ভাঙবে তবে পেছনের পা কিন্তু সোজা থাকবে। এভাবে ৩০ সেকেন্ড থাকুন। আবার অন্য পায়ে করুন। এটি প্রতি পা ৩ বার করে করবেন।

প্রতিটি ব্যায়াম করার সময়ই ৫ থেকে ৬ বার গভীর শ্বাস নিয়ে আবার ধীরে ধীরে ছাড়ুন। লক্ষ্য রাখবেন শরীরের কোথাও যেনো খুব চাপ না পড়ে। সব থেকে ভালো হয় সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্যায়াম করলেই বেশি ভালো হয়, তবে যদি করা সম্ভব না হয় তাহলে দিনের যেকোনো সময় ব্যায়াম করে নিতে পারেন তাতেও কোনো সমস্যা নেই।

যদি ব্যথা দীর্ঘদিন থাকে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...