The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির হঠাৎ শ্বাসকষ্ট হলে কী করবেন?

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রতিদিনই বাড়ছে নতুন কোভিড আক্রান্তদের সংখ্যা। বেশির ভাগ কোভিড-রোগীদের চিকিৎসকরা বাড়াবাড়ি না হওয়া পর্যন্ত বাড়িতেই পৃথক থাকতে উপদেশ দিচ্ছেন। তবে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট হলে কী করবেন? জেেনে নিন।

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির হঠাৎ শ্বাসকষ্ট হলে কী করবেন? 1

যে সব করোনা রোগী নিজ বাড়িতেই অবস্থান করছেন। তাদের যদি হঠাৎ শ্বাসকষ্ট শুরু হয়, কিভাবে সামলাবেন নিজেকে? চিকিৎসকরা এক বিশেষ পদ্ধতির কথা বলেছেন, যার নাম হলো প্রোনিং। শোওয়ার সময় এক বিশেষ পদ্ধতিতে খুব সাবধানে যদি আপনি উপুর হয়ে পেটের উপর ভর করে শুতে পারেন, তাহলে শ্বাস-প্রশ্বাসে অনেকটা সুবিধা হবে। কোভিড আক্রান্তদের শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে এই পদ্ধতি খুবই কার্যকরি।

এই বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোভিড হলে সারাদিন নিয়ম করে শরীরের অক্সিজেন সম্পৃক্ততা অবশ্যই মাপতে হবে। যদি দেখেন যে সেটা ৯৪’এর নিচে নেমে গেছে, তাহলে প্রোনিংয়ের পদ্ধতি শুরু করতে হবে। কারণ হলো অক্সিজেন পেতেও সাহায্য করে এই পদ্ধতি।

কীভাবে করবেন

৪ থেকে ৫টা বালিশ সঙ্গে রাখুন। প্রথমেই ধীরে ধীরে উপর হয়ে শুতে হবে। একটা বালিশ মুখ কিংবা গলার কাছে রাখবেন, দুটো থেকে তিনটি বালিশ বুকের নিচ থেকে পেটের নিচ অবধি রাখবেন। আরেকটাই বালিশ পায়ের তলায় রাখবেন। উপুর হয়ে আধা ঘণ্টা কিংবা ঘণ্টা খানেক থাকতে পারেন। এরপর ধীরে ধীরে ডান দিকে ঘুরে যেতে হবে। এভাবে আপনি আপনার সুবিধা মতো আধা ঘণ্টা থেকে অন্তত ঘণ্টা দুয়েক থাকতে পারেন। তারপর বালিশ পিঠের কাছে রেখে বসে থাকতে হবে আরও আধা ঘণ্টা থেকে ঘণ্টা মতো। এরপর শুয়ে আবারও বাঁ দিক ফিরে শুতে হবে। আবারও ঘণ্টা দুয়েক থাকার পর শুরুর মতোই উপুর হয়ে শুতে হবে।

চিকিৎসকরা ঘন ঘন পাশ ফিরে শোওয়ার উপদেশ দিচ্ছেন। আধা ঘণ্টা হতে ২ ঘণ্টা পর্যন্ত একইভাবে শুতে পারেন। তবে প্রত্যেক আধা ঘণ্টায় দিক বদলানো ভালো। যদি আপনার শরীরে কোনও রকম আঘাত থাকে, তাহলে সেটির দিকে খেয়াল রাখবেন। সুবিধামতো বালিশের জায়গা একটু অদলবদল করে নিতে হবে। খাওয়ার অন্তত আধা ঘণ্টা পর এই পদ্ধতি শুরু করা যাবে।

যাদের এটি করা যাবে না

# গর্ভবতী মা।

# যাদের শিরদাঁড়ার সমস্যা রয়েছে।

# যাদের কঠিন হৃদরোগের সমস্যা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...