অভাব-অনটনে বুদ্ধি কমে!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ অভাব-অনটনে বুদ্ধি হ্রাস পায়। এ বিষয়ে দীর্ঘদিন গবেষণার পর এমন তথ্য দিয়েছেন গবেষকরা।


decreased intelligence

ছুটির দিনে বাসায় একবেলা ভালোমন্দ খাবেন বা পরিবারের সবাইকে নিয়ে কোথাও বেড়াতে যাবেন, স্বল্প আয়ের একজন মানুষকে এ সামান্য বিষয় অনেক চিন্তায় ফেলে দেয়। গবেষকরা বলছেন, আর্থিক অনটনের এ চিন্তা মানুষের মানসিক শক্তি বিপর্যস্ত করে, নাশ করে দেয় বুদ্ধি। দারিদ্র্যের কারণে বুদ্ধিমত্তা অন্তত ১৩ পয়েন্ট কমে যায়। সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণায় বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড, প্রিন্সটন ও উত্তর আমেরিকার কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ধারাবাহিক কয়েকটি গবেষণা করেন। এর মাধ্যমে তারা দারিদ্র্যের সঙ্গে বুদ্ধিবৃত্তিক সক্ষমতার সম্পর্কটি উদ্ঘাটন করেছেন।

গবেষকরা দেখতে পান, মানসিক এ চাপ মোকাবেলায় দরিদ্র মানুষের আইকিউ ১৩ পয়েন্ট খরচ হতে পারে। ফলে সহজেই তাদের কাজকর্মে ভুল হয়, ভুল সিদ্ধান্ত নেয়। এতে তাদের অর্থনৈতিক দুরবস্থা আরও বেড়ে যায়।

গবেষক দলের সদস্য হার্ভার্ডের অর্থনীতিবিদ সেন্দিল মুল্লায়িনাথন বলেন, আমাদের গবেষণা ধারণা দেয়, দরিদ্র হলে শুধু অর্থের অভাব থাকে তা নয়, বুদ্ধিবৃত্তিক সামর্থ্যও ক্ষীণ হয়ে যায়। অর্থনৈতিক চাপ দরিদ্র মানুষের বুদ্ধিবৃত্তিক সামর্থ্যে তাৎক্ষণিক প্রভাব ফেলে বলে পরীক্ষায় দেখতে পান গবেষকরা।

গবেষকরা বলেন, দরিদ্র মানুষের যে বুদ্ধি নেই, তা নয়, কঠোর আর্থিক সীমাবদ্ধতার মধ্যে বসবাস এবং উদ্বেগের ফলে তাদের কার্যকর বুদ্ধিবৃত্তিক ক্ষমতা সীমিত হয়ে যায়। যে কারণে তারা অযথায় ভুল করে বসেন। মূলত দারিদ্র্যতায় তাদের বুদ্ধি হ্রাসের কারণ। সূত্র : ডেইলি মেইল অনলাইন।

Advertisements
Loading...