The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বিগ ব্যাঙ থিওরি না, মহাবিশ্বর সৃষ্টি ব্যাখ্যায় নতুন তত্ত্ব রেইনবো গ্র্যাভেটি থিওরি!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ মহাবিশ্বের শুরুটা হলো কি করে তা নিয়ে নানা মুনির নানা মত। মহা বিস্ফোরণ তত্ত্ব বা বিগ ব্যাঙ সৃষ্টির শুরু সংক্রান্ত একটি মতবাদ। বলা হয়ে থাকে, মহা এক বিস্ফোরণ এর মাধ্যমে এই বিশ্ব জগতের সৃষ্টি হয়েছিল। তবে রেইনবো গ্র্যাভেটি তত্ত্ব বলছে ভিন্ন কথা। রেইনবো গ্র্যাভেটি তত্ত্ব বলছে, মহাবিশ্বের শুরু বলে কিছু ছিল না এবং অসীমের পথে বিস্তৃত হচ্ছে।


Rainbow-Gravity-Theory

বিগ ব্যাঙ তত্ত্ব বলে আজ থেকে প্রায় ১৩.৭ বিলিয়ন বছর পূর্বে এই মহাবিশ্ব একটি অতি ঘন এবং উত্তপ্ত অবস্থা থেকে সৃষ্টি হয়েছিল। বিজ্ঞানী এডুইন হাবল প্রথম বলেন, দূরবর্তী ছায়াপথসমূহের বেগ সামগ্রিকভাবে পর্যালোচনা করলে দেখা যায় এরা পরষ্পর দূরে সরে যাচ্ছে অর্থাৎ মহাবিশ্ব ক্রমশ সম্প্রসারিত হচ্ছে। আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্বের ফ্রিদমান-ল্যমেত্র্‌-রবার্টসন-ওয়াকার মেট্রিক অনুসারে এটি ব্যাখ্যা করা হয়েছে। এই তত্ত্বসমূহের সাহায্যে অতীত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সমগ্র মহাবিশ্ব একটি সুপ্রাচীন বিন্দু অবস্থা থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। এই অবস্থায় সকল পদার্থ এবং শক্তি অতি উত্তপ্ত এবং ঘন অবস্থায় ছিল। কিন্তু এ অবস্থার আগে কী ছিল তা নিয়ে পদার্থবিজ্ঞানীদের মধ্যে কোন ঐক্যমত নেই।

অন্য দিকে রেইনবো গ্র্যাভেটি তত্ত্ব বিজ্ঞানীদের মধ্যে সার্বজনীন ভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। এই তত্ত্বটি বিগ ব্যাঙ তত্ত্বের ত্রুটিগুলোর দিকে দৃষ্টিপাত করিয়েছে। রেইনবো গ্র্যাভেটি তত্ত্ব অনুসারে বলা হয়ে থাকে, নির্দিষ্ট কোন বিন্দু থেকে মহা বিশ্বের উৎপত্তি ঘটে নি। ১০ বছর আগে আপেক্ষিকতা এবং কোয়ান্টাম মেকানিক্স এর মধ্যকার পার্থক্য সমন্বয় করতে গিয়ে প্রথম রেইবো তত্ত্বটি প্রস্তাব করা হয়। আশ্চর্যজনক হলেও এই তত্ত্ব মতে, সময়ের কোন শুরু ছিল না।

Rainbow-Gravity-Theory-Highlights-Flaws-In-The-Big-Bang-Theory

গবেষকরা গামা রে বিস্ফোরণ এবং অন্যান্য মহাজাগতিক ঘটনা বিশ্লেষণ করে দেখছেন। যদি রেইনবো তত্ত্ব সঠিক হয় তবে আমরা আরো জ্যোতির্বিজ্ঞানের চমকপ্রদ ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারবো।

তথ্যসূত্র: দি টেক জার্নাল, ডেইলি মেইল, সায়েন্টিফিক আমেরিকা

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...