The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বাংলাদেশ থিং ভেরিগুড!

হয়ত খুবই সাধারণ ঘটনাটা, কিন্তু চোখে পানি এনে দেয় ভালো লাগায়, ভালোবাসায়! আজ আপনাদের জন্য এমনি একটি অসাধারণ গল্প লিখেছেন প্রবাসী এক বাংলাদেশী।

made-in-bangladesh

ঝাঁ চক চকে রোদেলা সকাল, হীম হীম স্নীগ্ধ রোদে প্রতিদিনের মত রাস্তার ফুটপাথে দাঁড়িয়ে সুবেশি নারি ও পুরুষেরা পথচারিদের কাছে বাইবেল বিতরন করছে, প্রচার করছে জিসাসের বাণি । তার পাশেই দাঁড়িয়ে এ্যামিগো হকারি করছে, হাতে ধরা মোজা, ছোট হ্যান্ড তোয়ালের বান্ডিল ঝুলিয়ে হেঁটে হেঁটে বিক্রি করছে, আরেক হাতে ঝোলান বড় ব্যাগে মধ্যে গেঞ্জি আন্ডারওয়ার ছাড়া আরও যেন কি কি আছে ।
এ্যামিগো কিছুদিন আগে সামান্য কিছু টাকা দিয়ে দালালের মাধ্যমে হন্ডুরাজ থেকে মেক্সিকো বর্ডার ক্রস করে আমেরিকায় চলে এসেছে, তাই তার কোনও বৈধ কাগজপত্রও নেই, আর বৈধ কাগজ পত্র না থাকায় কাজও পাচ্ছে না কোথাও, সেজন্যেই লস এঞ্জেলেসের ডাউনটাউনের হোলসেল মার্কেট থেকে সস্তায় জিনিস কিনে ফুটপাথে ঘুরে ঘুরে বিক্রি করে জীবন যাপন করে।

10427362_10204072080707945_1455538829424966134_n

এ্যামিগো তার নাম নয়, এটার মানে মাই ফ্রেন্ড বা আমার বন্ধু, শব্দটা স্প্যানিশ, পথচারি অপরিচিত মানুষদের এভাবেই সম্বোধন করার একটা চল লস এঞ্জেলেসে আছে। আমি তার কাছ থেকে পাঁচ ডলার দিয়ে এক ডজন সাদা কালো মখমলের মোজা কিনলাম, বাংলাদেশের টাকায় সাড়ে তিনশ টাকারও বেশি কিন্তু এখানে বাজার থেকেও বেশ কমই দাম পড়ল। দশ ডলারের বিলটা তার হাতে ধরিয়ে দিয়ে যখন বল্লাম, ‘কীপ দ্য চেঞ্জ’ এ্যামিগো আমার দিকে অবাক বিষ্ময়ে তাকাল, আমি মুখ ঘুরিয়ে হাঁটা দিলাম, হাঁটতে হাঁটতে জনারন্যের ভিড়ে মিশে গেলাম, কারন আমি চাইনি এ্যামিগো আমার চোখের দিকে তাকিয়ে চিক চিক করে ওঠা জল দেখে ফেলুক, আমি জানাতে চাইনি তাকে যে, সে যে দেশের প্রোডাক্টটা বিক্রি করছে আমি সেই দেশ থেকে এসেছি। আমি তাকে জানাতে চাইনি একটু আগে সে তার কাস্টমারকে যা বলেছে তা শুনে আমার বুক গর্বে ফুলে উঠেছে তিন হাত।

ফুটপাথের জনারন্যে উদ্ভ্রান্তের মত হাঁটছি, আমার হাতে ধরা মখমলের মত নরম একবান্ডিল বাংলাদেশ, বুকের মধ্যে সুদীর্ঘ ইতিহাস। গাড়ির হর্ন, বাসের শব্দ, মানুষের কোলাহল ছাপিয়ে আমার কানে বাঁজছে একটু আগে ভাঙ্গা ভাঙ্গা ভুল ভাল ইংরেজিতে এ্যামিগোর বলা সেই কথাগুলো ” দিস ইজ নট ফ্রম চায়না, দিস ইজ কাম ফ্রম বাংলাদেশ, দিস ইজ গুড, চায়না থিং নো গুড, বাংলাদেশ থিং ভেরিগুড”।

আমার ভেতরে তোলপাড় হচ্ছে, বুকের মধ্যে প্যাসিফিকের ঢেউ, হাজার হাজার মাইল দুরে সাত সমুদ্র তের নদির পাড়ের এই অভিজাত সম্রাজ্যের সর্বস্তর থেকে ক্রমেই ফুটপাথ পর্যন্ত ছুঁয়ে যাচ্ছে লাল সবুজ, ঘিরে ফেলছে লাল সবুজ তার প্রেমময় পরশে নগর থেকে বন্দর, লোকালয় থেকে জনপদ। মেইড ইন বাংলাদেশ এখন নিজেই একটা বৈশ্বিক ব্রান্ড।

প্রিয় লাল সবুজ তুমি পত পত করে উড়তে থাক, উড়তে থাক অনন্ত কাল ধরে, উড়তে থাক এই গ্রহের প্রতিটি আনাচে কানাচে, আকাশে বাতাসে………………

ছবি এবং লেখা “সাইফুল আলম চৌধুরী”, আমরা তাকে অন্তরের অন্তস্থল থেকে জানায় ধন্যবাদ, এত সুন্দর করে লেখার জন্য, আমাদের সবার সাথে শেয়ার করার জন্য.

Loading...