The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

প্রাণের অস্তিত্ব পৃথিবীর আগেই!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ পৃথিবী সৃষ্টির আগেই প্রাণের অস্তিত্ব ছিল এবং তা সৌরজগতের বাইরে উদ্ভূত বলে দাবি করছেন বিজ্ঞানীরা। গবেষকরা হিসাব করে দেখান, পৃথিবী সৃষ্টির ১০ বিলিয়ন বা এক হাজার কোটি বছর আগেও প্রাণের অস্তিত্ব ছিল।

Praner ostitto
জেনেটিক (প্রজনন) শাস্ত্রবিদরা সাধারণত কম্পিউটারে গতি বৃদ্ধির শাসনতত্ত্ব প্রাণের ক্ষেত্রে ব্যবহার করেন। ফলাফলে দেখা যায়, পৃথিবী সৃষ্টির ১০ বিলিয়ন বছর আগে প্রথম মিলে প্রাণের অস্তিত্ব এবং তা ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন বা সাড়ে চারশ’ বছর বয়সী হিসেবে ধারণা করা হচ্ছে।

প্যান্সপারমিয়া (চঅঘঝচঊজগওঅ) একটি তত্ত্ব যার অনুমান হচ্ছে, মহাবিশ্বে প্রাণের অস্তিত্ব সর্বত্র এবং তা উল্কা, গ্রহাণুর মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। প্যান্সপারমিয়া প্রস্তাব করে, এক্সিট্রিমোফিলসের মতো প্রাণ স্থানের প্রভাবে বেঁচে থাকতে পারে। গ্রহাণু ও গ্রহের মধ্যে সংঘর্ষের পর মহাকাশে প্রক্ষিপ্ত ধ্বংসাবশেষে আশ্রয় নিতে পারে প্রাণ। এ প্রাণের অস্তিত্ব সুপ্ত অবস্থায় এলোমেলোভাবে প্রোটোপ্লানেটরি ডিস্কের সঙ্গে মিশে দীর্ঘ সময় ধরে অন্যান্য গ্রহে ভ্রমণ করতে পারে। একটি নতুন গ্রহের উপরিভাগে অনুকূল পরিবেশের সঙ্গে মিশে ব্যাকটেরিয়া সক্রিয় হয়ে বিবর্তন প্রক্রিয়া শুরু করতে পারে।

মুরের তত্ত্বের পর্যবেক্ষণ হচ্ছে, কম্পিউটারের ট্রানজিস্টারে সমন্বিত বর্তনীর হার প্রতি দুই বছর অন্তর দ্বিগুণ হয়। এ গণনার অগ্রগতির মাত্র কয়েক বছর মুরের তত্ত্বে প্রয়োগ করা হয়। তবে ১৯৬০ সালে ফিরে যেতে হবে, যখন মাইক্রোচিপস উদ্ভাবিত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অন এইজিংয়ের অ্যালেক্সি সারোভ ও ফ্লোরিডার গালফ স্পেসিমেন মেরিন ল্যাবরেটরির রিচার্ড গর্ডন প্রাণের ওপর এ তত্ত্ব প্রয়োগ করেন এবং সৃষ্টির শুরু দেখার চেষ্টা করেন। তারা যুক্তি দেখান, প্রাণের জটিলতা এবং তা পরিবর্তনের হার পরিমাপ করা সম্ভব। যেমন কেঁচো, মাছ এবং স্তন্যপায়ী আরও প্রাণীর প্রাণের জটিলতা বৃদ্ধি পেয়েছে। অনলাইন জার্নাল আরেক্সিভে এ দুই বিজ্ঞানী দেখান, জেনেটিক জটিলতার সাধারণ সংশেস্নষণের (একটি লগ স্কেল) মাধ্যমে প্রাণের সৃষ্টির আদি সময় ৯.৭ ক্ট ২.৫ বিলিয়ন বছর আগে। সূত্র ডেইলি মেইল।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...