ওষুধের সঙ্গেই থাকবে সেন্সর, না খেলেই ধরে ফেলা যাবে!

বিজ্ঞানের নানা আবিষ্কারের মধ্যে এটিও একটি যুগান্তকারী আবিষ্কার বলা যায়

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অসুখ হলে ওষুধ খেতে হয় সেটিই স্বাভাবিক নিয়ম। কিন্তু অনেকেই অসুখ হলেও মোটেও ওষুধ খেতে চান না। অনেকেই আবার ওষুধ ফেলে দিয়ে বলেন, খেয়েছি। কিন্তু এখন থেকে সেই কাজটি আর করা যাবে না। কারণ এমন এক আবিষ্কার করা হয়েছে তাতে ওষুধের সঙ্গেই থাকবে সেন্সর, না খেলেই ধরে ফেলা যাবে!

বিজ্ঞানের নানা আবিষ্কারের মধ্যে এটিও একটি যুগান্তকারী আবিষ্কার বলা যায়। যুক্তরাষ্ট্রে এই প্রথম একটি বড়ি (ট্যাবলেট) বিক্রির জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছে যেটির সঙ্গে একটি হজমযোগ্য সেন্সর যুক্ত থাকবে! এতে করে রোগী ওই ওষুধ খেয়েছে কিনা চিকিৎসকরা তা অনায়াসে ধরে ফেলতে পারবেন।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, এবিলিপাইম্যাকসাইট অ্যারিপিপ্রাজোল নামে ওই ট্যাবলেটটি মানসিক রোগের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

বলা হয়েছে, রোগীর শরীরে একটি প্যাচ পড়ানো থাকবে, যেটি শরীরের ভেতর এই ওষুধের ক্রিয়াকর্মের তথ্যগুলো জানা যাবে। রোগীর অনুমতি থাকলে সেই তথ্য চিকিৎসকের নিকটেও চলে যাবে।

এই বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, যে কারণে রোগীদের ওষুধ সেবনের নিশ্চয়তা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। এই ট্যাবলেটটির ভেতরে বালুকণার সাইজে একটি সেন্সর রয়েছে, যেটি পাকস্থলীর রসের সঙ্গে সংস্পর্শের সঙ্গে সঙ্গে কার্যকরী হয়ে উঠবে। যে কারণে ৩০ মিনিট হতে ২ ঘণ্টার ভেতর এবং বাইরে হতে বোঝা যাবে ওষুধটি শরীরে আদতেও সেবন হয়েছে কি না!

এই বিষয়ে মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের কর্মকর্তা মিচেল ম্যাটিস বলেছেন, মানসিক রোগীদের ওষুধ খাওয়া নজরদারি করা গেলে, অন্যান্য রোগীদের জন্যও এই প্রক্রিয়া কাজে লাগনো যেতে পারে। রোগী ও চিকিৎসকদের সুবিধার জন্য প্রযুক্তির প্রয়োগে সবসময় উৎসাহিত হবে সেটিই আমাদের বিশ্বাস।

উল্লেখ্য, এই গবেষণার সংযোজন চিকিৎসা ক্ষেত্রে একটি বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Advertisements
Loading...