নাইজেরিয়া স্বরুপে আবির্ভূত, তাহিতিকে ৬-১ গোলে উড়িয়ে দিলো সুপার ঈগলরা

ওদুয়ামাদি’র স্মরণীয় হ্যাটট্রিকে সুপার ঈগলের দল নাইজেরিয়া গোল বন্যায় ভাসালো তাহিতিকে। প্রকৃতপক্ষে, ম্যাচে আরও বেশী ব্যবধানে পরাজিত করতে পারতো প্রতিপক্ষকে কিন্তু উপযুক্ত সমাপ্তি’র অভাবে সেগুলো গোলে পরিণত হয়নি। নাইজেরিয়ান কোচের মতে গোলের ব্যবধান হতে পারতো ১০-১! ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত কনফেডারেশন কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়ে নাইজেরিয়া।


289392hp2

তাহিতি’র ৫-৪-১ ফর্মেশনের বিপরীতে ৪-৩-৩ ফর্মেশন নিয়ে খেলতে নামে নাইজেরিয়া। খেলা শুরুর মাত্র পঞ্চম মিনিটে বল নিয়ে তাহিতি’র সীমানায় ঢুকে পড়েন ডিফেন্ডার এচিজিলি, প্রতিপক্ষকে বোকা বানিয়ে একটুখানি জটলা কাটিয়ে বল সোজা পাঠিয়ে দেন গোলপোষ্ট বরাবর। ম্যাচের প্রথম গোল পেয়ে যায় নাইজেরিয়া। তখনও কিন্তু বোঝা যায়নি ম্যাচ শেষে কি হতে যাচ্ছে!

পাঁচ মিনিটে গোলের পর আবার ১০ মিনিটের মাথায় গোল করে বসে নাইজেরিয়া! দর্শক এবার বোধহয় নড়েচড়ে বসেছিলেন গোলবন্যা হবার আশায়, নিরাশ হতে হয়নি তাদের একটুও! মাঝমাঠ থেকে স্ট্রাইকার আহমেদ মুসা ডিফেন্ডার ওদুয়ামাদিকে দারুণ এক ক্রস দেন, বল নিয়ে ওদুয়ামাদি সামান্য কিছু ট্যাকল করে অপ্রস্তুত করে ফেলেন তাহিতি’র গোলকীপার সামিনকে। ২-০ গোলে এগিয়ে যায় নাইজেরিয়া!

২৬ মিনিটে একক দক্ষতায় আবার গোল করেন ওদুয়ামাদি। স্ট্রাইকার মুসা’র গোলমুখ বরাবর দেয়া একটি শট গোলরক্ষক সামিনের গায়ে ধাক্কা লেগে ফিরে আসে ওদুয়ামাদি’র পায়ে, দ্রুত গোল করে দলকে ৩-০ গোলে এগিয়ে নিয়ে যান তিনি।

৪৩ মিনিটে কর্ণার থেকে আক্রমণের জোর প্রচেষ্টা চালান তাহিতি’র স্ট্রাইকার ভাহিরুয়া, কিন্তু বল মাঠের বাইরে চলে যায়। ৪৫ মিনিটে আরও একটি গোলের সুযোগ পেয়েছিলো নাইজেরিয়া কিন্তু কর্ণার থেকে আসা বলটি হেডে লাগাতে ব্যর্থ হন স্ট্রাইকার উজাহ।

বিরতি’র পর ঘুরে দাঁড়ানো’র চেষ্টা করে তাহিতি। তাতে ৫৪ মিনিটে কর্ণার থেকে ভাহিরুয়া’র বলের দখল নেন পেছন থেকে উঠে আসা মিডফিল্ডার জোনাথন তেহাউ। পায়ের পেছন দিয়ে দৃষ্টিনন্দন একটি গোল দিয়ে আনন্দে ভাসিয়ে তোলেন তাহিতিকে। কিন্তু সে আনন্দ ম্লান হয়ে যায় ৬৮ মিনিটে তেহাউ’র আত্মঘাতী গোলে! বিপরীত দিক থেকে ছুটে আসা বলটি গোলমুখ থেকে সরাতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দেন তিনি, ফলে নাইজেরিয়া ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায়।

৭৬ মিনিটে অফসাইড থেকে স্ট্রাইকার লেডে বলের পাস দেন ওদুয়ামাদিকে, সেখান থেকে আসা জোরালো শট ঠেকাতে ব্যর্থ হন তাহিতি গোলরক্ষক। হ্যাটট্রিক করেন ওদুয়ামাদি, নাইজেরিয়া ৫-১ এর বড় ব্যবধানে এগিয়ে জয় নিশ্চিত করে ফেলে।

তবে গোলবন্যার শুরু করা ডিফেন্ডার এচিজিলি ৮০ মিনিটে মুসা’র পাস থেকে পাওয়া বলটি মাত্র ৮ ইয়ার্ড দূরত্ব থেকে, ডিবক্সের সামনে তাহিতি’র গোলপোষ্টে সরাসরি থ্রো করে নাইজেরিয়াকে ৬-১ ব্যবধানে অসাধারণ জয় এনে দেন।

তাহিতি’র এমন লজ্জাজনক পরাজয়ের শোক কাটাতে পারেননি দলের কোচ এডি এটেটে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রায় কেঁদেই দিয়েছেন! তিনি বলেছেন, “প্রায় সকল তাহিতিবাসী এই খেলা দেখতে বসেছিলো কিছু ভালো পার্ফরম্যান্স দেখার আশায়, এমনকি আমাদের প্রেসিডেন্ট আমাদের মেসেজ দিয়েছিলেন তিনি তার গুরুত্বপুর্ণ মিটিং বাতিল করে খেলা দেখতে বসেছেন। আমাদের উচিত ছিলো আরও ভালো খেলা উপহার দেয়া।”

ম্যাচে ৩ গোল করে এখন পর্যন্ত টূর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় নাম লেখালেন ওদুয়ামাদি। ৩ পয়েন্ট পেয়ে গ্রুপ বি’তে স্পেনের সাথে যৌথভাবে শীর্ষে অবস্থান করছে সুপার ঈগল খ্যাত নাইজেরিয়া।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...