The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ভারতের ১৬ জেলায় পঙ্গপাল হানা দিয়েছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ পাকিস্তান থেকে ভারতে ঢুকে পড়েছে মরু পঙ্গপালের বিশাল একটি ঝাঁক। ইতিমধ্যেই ভারতের রাজস্থানের অন্তত ১৬টি জেলায় হানা দিতে শুরু করেছে পঙ্গপাল।

ভারতের ১৬ জেলায় পঙ্গপাল হানা দিয়েছে 1

শস্যহীনতা ও অনুকূল বাতাসের কারণে অঞ্চলটিতে পঙ্গপালেরা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বিশেষজ্ঞরা।রাজস্থানের কৃষি কমিশনার ড. ওম প্রকাশ বলেছেন, ‘মাঠে কোনও ফসলই নেই। শস্য বিনাশ ও স্থায়ী হওয়ার মতো জায়গা না পেয়ে খাবারের সন্ধানে পঙ্গপালের ঝাঁকগুলো দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পঙ্গপালগুলো দিনদিন যোনো বিরক্তিকর হয়ে উঠছে। রাতের বেলা নিয়ন্ত্রণ অভিযানের সময় তারা ট্রাক্টরের শব্দ বা আলো দেখলেই উড়ে সরে যাচ্ছে।’

টানা ২৬ বছর পর গত বছরের মার্চে আবারও মরু পঙ্গপালের হানার মুখে পড়েছিল রাজস্থান। এই হামলা চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্থায়ী হয়। দীর্ঘদিনের এই তাণ্ডবে রাজ্যটির অন্তত ১২টি জেলার ৬ লাখ ৭০ হাজার হেক্টর জমির ফসল ধ্বংস করেছিল পঙ্গপালের ঝাঁক। রাজ্য সরকারের হিসাবে, এতে ক্ষতির পরিমাণ ছিল অন্তত এক হাজার কোটি রুপির উপরে।

তারপর গত ১১ মে পাকিস্তান সীমান্তবর্তী গঙ্গানগর জেলায় আবারও পঙ্গপালের উপস্থিতি দেখা দেয়। ইতিমধ্যেই বুন্দি, সিকার, প্রতাপগড়, চিত্রগড়সহ বেশ কয়েকটি জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে পঙ্গপালের বিশাল বিশাল ঝাঁক।

ভারতের কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত পঙ্গপাল সতর্কতা সংস্থা (এলডব্লিউও) মে-জুন মাসে আবারও শস্য বিনষ্টকারী এই পতঙ্গের বড় হামলার আশঙ্কা করেছে।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা মতে, পঙ্গপাল মানব সম্প্রদায়ের জন্য চরম ক্ষতিকর একটি পতঙ্গ। এদের একেকটি ঝাঁকে লাখ থেকে কয়েক কোটি পর্যন্ত পতঙ্গও থাকতে পারে। তাদের ছোট একটি ঝাঁক মাত্র একদিনেই ৩৫ হাজার মানুষের সমান খাবার সাবাড় করে দিতে সক্ষম।

তথ্যসূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...