The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মাস্ক ব্যবহারের কারণে গলা ব্যথা হলে করণীয়

জীবাণু ও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে হলে আমাদের সবারই উচিত নিয়মিত মাস্ক ধুয়ে ব্যবহার করা

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হতে বাঁচতে সম্ভাব্য প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হলো মাস্ক ব্যবহার। মাস্ক ব্যবহারের কারণে বাতাসে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাস শ্বাসযন্ত্রে প্রবেশ করতে ও সংক্রমণ ঘটাতে বাধা দিয়ে থাকে।

মাস্ক ব্যবহারের কারণে গলা ব্যথা হলে করণীয় 1

গবেষণা বলছে যে, মাস্ক পরলে সংক্রমণের ঝুঁকি ৫০ শতাংশ কমতে পারে সেটি ঠিক। এজন্য বাইরে বের হওয়ার আগে মাস্ক ব্যবহার করার নির্দেশ দেওয়া হয়ে থাকে। দীর্ঘসময় মাস্ক পরে থাকার কারণে অনেকেই বিভিন্ন সমস্যারও সম্মুখীন হচ্ছেন। যেমন- মুখে ব্রণ, অস্থিরতা, চশমা ঘোলাটে হওয়া ইত্যাদি।

মাস্ক পরার ক্ষেত্রে নতুন আরেকটি সমস্যা দেখা দিয়েছে, আর তা হলো গলা ব্যথা। এর পেছনে কী কারণ বিদ্যমান তা প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

আমরা সবাই জানি, স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখতে হলে আমাদের নিজেদের ও চারপাশকেও পরিষ্কার রাখতে হবে। জীবাণু ও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে হলে আমাদের সবারই উচিত নিয়মিত মাস্ক ধুয়ে ব্যবহার করা। কেনোনা মাস্কে জমে থাকা ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ধূলিকণা ও অ্যালার্জেন গলা ব্যথার মূল কারণও হতে পারে।

আপনি যখন দীর্ঘদিন মাস্ক না ধুয়ে ব্যবহার করেন তাহলে এইসব ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া মাস্কের ভেতর বাসাও বাঁধে। এগুলো গলায় প্রবেশ করে জ্বালা-যন্ত্রণা সৃষ্টি করে। দুর্বল ইমিউনিটি ও ডাস্ট অ্যালার্জি আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে এই ঝুঁকি আরও বেশি রয়েছে।

গলা ব্যথার আরও একটি কারণ হতে পারে, মাস্ক পরে থাকার জন্য মানুষকে কিছুটা জোরে কথা বলতে হয়, যাতে অপরজন শুনতে পারে, যার কারণে গলায় চাপ পড়ে ও ব্যথার সৃষ্টি হয়ে থাকে।

প্রতিকার করবেন কিভাবে? হাত ধোয়ার মতো মাস্ক ধোয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। প্রত্যেকবার ব্যবহারের পর গরম পানি ও সাবান দিয়ে মাস্ক আপনাকে ধুয়ে নিতে হবে। পরার আগে অবশ্যই ভালো করে এটিকে রোদে শুকাতে হবে।

সুবিধার জন্য দু’টি মাস্ক রাখার পরামর্শ দেওয়া হয় যাতে করে আপনি সেগুলো বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। যতোটা সম্ভব মাস্ক স্পর্শ করা এড়িয়ে চলতে হবে। মাস্ক পরার আগে ও পরে আপনার হাতটি সঠিকভাবে ধুয়ে নিতে হবে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...