The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মাস্ক জীবাণুমুক্ত করার কয়েকটি উপায় জেনে নিন

মাস্ক শুধু ব্যবহার করলেই চলবে না এটি জীবাণুমুক্তও করতে হবে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস হতে নিরাপদে থাকতে ঘর থেকে বের হলেই মাস্ক ব্যবহার জরুরি। তাহলে মাস্ক জীবাণুমুক্ত করার কয়েকটি উপায় আজ জেনে নিন।

মাস্ক জীবাণুমুক্ত করার কয়েকটি উপায় জেনে নিন 1

তবে মাস্ক শুধু ব্যবহার করলেই চলবে না এটি জীবাণুমুক্তও করতে হবে। মাস্ক প্রতিবার ব্যবহারের পূর্বে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পরও সাবান দিয়ে ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হাত ধুতে হবে। তারপর যদি আপনার মাস্কটি কাপড়ের হয়ে থাকে তাহলে মাস্কও ধুয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

ব্যবহারের জন্য কয়েকটি কাপড়ের মাস্ক নিজেই বাড়িতে বানিয়ে নিতে পারেন। সেই মাস্কগুলো পরিষ্কার করে ধুয়ে নিতে তারপর ব্যবহার করতে হবে।

তবে এখন প্রশ্ন হলো, ব্যবহার করা মাস্ক কীভাবে পরিষ্কার করে পুনরায় ব্যবহারযোগ্য আপনি করবেন?

সাধারণ মাস্ক জীবাণুমুক্ত করার বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।

কীভাবে মাস্ক পরিষ্কার করবেন জেনে নিন:

পাত্রে গরম পানি নিয়ে নিন

বড় একটি পাত্রে গরম পানিতে সাবান গুলে নিয়ে মাস্কগুলো কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখতে হবে, অন্তত ৫ মিনিট। তারপরে তা তুলে নিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করে রোদে ভালো করে শুকাতে হবে।

ওয়াশিং মেশিনে পরিষ্কার করুন মাস্কগুলোকে একটি কাপড়ের ব্যাগে ঢুকিয়ে নিয়ে। ব্যাগের মধ্যে রেখে পরিষ্কার করলে তাহলে মাস্কের ‘ইলাস্টিক’ নষ্ট হবে না।

‘ওয়াশিং মেশিনে’ সাধারণ ‘লন্ড্রি ডিটারজেন্ট’ই ব্যবহার করে গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করতে পারেন।

ওভেনে পরিষ্কার ব্যবহার করা মাস্ক যদি ‘ফ্লেমেবল’ বা দাহ্য না হয় এবং সাধারণ কাপড়ের ফিতা থাকে, তবেই শুধু ওভেনে জীবাণুমুক্ত করা সম্ভব হবে। ওভেনে ১৫৮ ডিগ্রি তাপমাত্রায় আধা ঘণ্টা গরম করলেও জীবাণুমুক্ত হবে।

এ ছাড়াও বৈদ্যুতিক ইস্ত্রিতে ‘মিডিয়াম’ বা মাঝারি তাপমাত্রায় আধা ঘণ্টা তাপ দিলেও জীবাণুমুক্ত হতে পারে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...