The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

দাঁড়িয়ে পানি পান করা স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়াতে পারে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ দেহের কোষ বা টিস্যু, বিভিন্ন অঙ্গ তথা মস্তিষ্ক, পাকস্থলী, কিডনী, ত্বক, চুল ইত্যাদির যথাযথ কার্যকারীতার জন্য পানি অত্যাবশ্যকীয় একটি জিনিস। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, দাঁড়িয়ে পানি পান করা স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়াতে পারে।

দাঁড়িয়ে পানি পান করা স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়াতে পারে 1

শরীরের সকল প্রকার কার্যাবলী সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করা অত্যন্ত প্রয়োজন। তবে অনেক সময় ভুল নিয়মে পানি পান করে নিজেকে ঝুঁকির মুখে ফেলে দেই আমরা অনেকেই। দাঁড়িয়ে পানি পান করলে দেখা দিতে পারে নানা রকম শারীরিক সমস্যা।

দাঁড়িয়ে পানি পানের ক্ষতিকর দিকগুলো সম্পর্কে জেনে নিন:

# দাঁড়িয়ে পানি পান করলে তা সরাসরি পাকস্থলীতে গিয়ে আঘাত করে থাকে। স্টমাক হতে নিঃসৃত অ্যাসিডের কর্মক্ষমতাও কমিয়ে দেয়। তখন বদহজমের আশঙ্কাও বাড়ে। তলপেটে যন্ত্রণাসহ একাধিক সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

# দাঁড়িয়ে পানি পান করলে তা দ্রুত কোলন কিংবা মলাশয়ে চলে যায়। যে কারণে পানির প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপকরণ শরীরে শোষিত হয় না।

# গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স ডিজিজ কিংবা G.E.R.D দাঁড়িয়ে পানি পান করলে সেটি সরাসরি ইসোফেগাসে গিয়ে ধাক্কা মারে। যে কারণে পাকস্থলীর ভেতরের সরু নালিটি মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ফলে গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স ডিজিজ কিংবা G.E.R.D এর মতো রোগ শরীরে বাসা বাঁধতে পারে।

# পানি পান করার পর ছাঁকনিগুলো তখন শরীর পরিশ্রুত করার কাজ শুরু করে দেয়। দাঁড়িয়ে পানি পান করলে শরীরের ভেতরে থাকা ছাকনিগুলো সংকুচিত হয়ে যায়। পরিশ্রুত করার কাজে বাধা পায়। শরীরে টক্সিনের মাত্রাও বাড়তে থাকে।

# দাঁড়িয়ে পানি পান করলে নার্ভ উত্তেজিত হয়ে পড়ে, যে কারণে উদ্বেগও বাড়তে থাকে।

# দাঁড়িয়ে পানি পান করলে কিডনি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এতে করে কিডনির কর্মক্ষমতাও কমে যায়। কিডনি ড্যামেজের সম্ভাবনাও থাকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...