The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মোবাইল চার্জে দিয়ে যেসব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বর্তমান সময়ে স্মার্টফোন ছাড়া যেনো কিছু ভাবাই যায় না। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মতোই ব্যবহার হচ্ছে স্মার্টফোন। তবে এই স্মার্টফোন চার্জ দিতে হলে কিছু নিয়ম আপনাকে অবশ্যই মানতে হবে। কী সেই নিয়ম?

মোবাইল চার্জে দিয়ে যেসব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে 1

স্মার্টফোনের কারণে মুহূর্তেই আমরা হাতের মুঠোয় পেতে পারি নানা তথ্য। অপরদিকে যে কোনো উৎসবে ছবি তোলার পাশাপাশি তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে জানতে পারি নানা ক্রিয়া প্রতিক্রিয়াও। তবে স্মার্টফোনের ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছুটা সতর্ক অবলম্বন করা একান্ত দরকার। অনেক সময় স্মার্টফোনটি চার্জে দেওয়ার পর ব্যাটারি থেকে হতে পারে বিস্ফোরণও।

আর স্মার্টফোনের ব্যাটারি বিস্ফোরণ নতুন কোনো ঘটনা নয়। বহু ক্ষেত্রেই দেখা যায় চার্জ দেওয়া অবস্থায় বিস্ফোরণ ঘটে ব্যাটারির। আহতও হন অনেকেই। কিছু ক্ষেত্রে পরিণতি ঘটে মর্মান্তিক। বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে বলেছেন, এক্ষেত্রে কিছু বিষয় নজর রাখা একান্ত প্রয়োজন। সাবধানতা অবলম্বন করাও দরকার। আসুন আজ সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে নিই্

# স্মার্টফোন চার্জে বসিয়ে কখনও কথা বলবেন না। ফোন কল তো নয়ই- ব্রাউজিং বা মেসেজ করা থেকেও বিরত থাকুন।

# স্মার্টফোনের সঙ্গে দেওয়া নির্ধারিত চার্জার দিয়েই চার্জ দিন। অন্য কোনো চার্জার দিয়ে কখনও চার্জ দেবেন না। চার্জার খারাপ হলে কিংবা হারিয়ে গেলে সেই ব্র্যান্ডের চার্জার কেনার জন্য চেষ্টা করুন।

# স্মার্টফোন চার্জ দিতে দিতে গরম হয়ে গেলে কখনও হালকাভাবে নেবেন না। প্রথমে চার্জ দেওয়া বন্ধ করে ফোন ঠাণ্ডা হতে দিন। তারপর ফোন সার্ভিসিং এ নিয়ে গিয়ে সারানোর ব্যবস্থা করুন।

# স্মার্টফোন ব্যবহার করার সময় যদি অস্বাভাবিক গরম মনে হয়, সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহার বন্ধ করে দিন। কিছু সময়ের জন্য ফোন অফ করুন। কভার পরানো থাকলে তা খুলে দিন। তখন এটি ঠাণ্ডা করার জন্য ফ্যান কিংবা এসির নিচে রাখুন।

# স্মার্টফোন চার্জের সময় কোনো শব্দ হলে সঙ্গে সঙ্গেই সুইচ অফ করে দিন। এক্ষেত্রে সার্ভিসিং সেন্টারে গিয়ে ফোন ও চার্জারটি দেখান।

# স্মার্টফোন খারাপ হলে একই সংস্থার সার্ভিস সেন্টারেই সারানোই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...