তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ-১৪ (৩০-৬-১২)

ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে তথ্য প্রযুক্তির হাওয়া। তাইতো বর্তমান বিশ্বে তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া ভাবাই যায় না। আজ তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ-১৪ এ বিশ্বের বেশ কিছু তথ্য প্রযুক্তির খবর তুলে ধরা হলো।

যে দেশে ইন্টারনেট সবচেয়ে বেশি সেন্সর হয়

কোন দেশ ইন্টারনেটে সবচেয়ে বেশি সেন্সরের কাঁচি চালায় বলুন তো? আপনার মনে নিশ্চয়ই সবার আগে চলে আসছে চীনের নাম?
কিংবা ইরান? কিন্তু না হল না।

গুগলের সম্প্রতি প্রকাশিত স্বচ্ছতা প্রতিবেদনে যে দেশটিকে কনটেন্ট প্রত্যাহার অনুরোধের শীর্ষে দেখা গেছে, সেটি হল আমেরিকা!

গুগল বলছে, ২০১১ সালের জুন-ডিসেম্বর সময়ে আমেরিকার কাছ থেকে আসা কনটেন্ট প্রত্যাহারের অনুরোধ আগের তুলনায় ১০৩ শতাংশ বেড়েছে। আমেরিকার পরেই অবস্থান ব্রিটেনের। দেশটির আইন প্রয়োগকারী বাহিনীর অনুরোধে ৬৪০টি ইউটিউব ভিডিও সরিয়ে নেয় গুগল। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আমাদেরই প্রতিবেশী দেশ ভারত।

টুইটার ছাড়লেন বিবিসির সঞ্চালক গুলাতি

ভারতীয় বংশোদ্ভূত টিভি ব্যক্তিত্ব সোবনা গুলাতি বর্ণবাদী আক্রমণের শিকার হয়ে শেষ পর্যন্ত অভিমান করে মাইক্রোব্লগিং সাইট ছাড়লেন। বিবিসির করোনেশন স্ট্রিট অনুষ্ঠানের সঞ্চালক হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। এ বিষয়ে ব্রিটিশ দৈনিক সান জানায়, টুইটারে এ নারীর বিকৃত ছবি ও তার সম্পর্কে অপ্রীতিকর মন্তব্য প্রকাশ করা হয়েছে। টুইটারে তাকে উদ্দেশ করে একজন লেখেন, তুমি ব্রিটিশ না, তুমি বিদেশী। আরেকজন লেখেন, আমার দেখা সবচেয়ে জঘন্য ব্যক্তি তুমি। এসব মন্তব্যের পর আরেকজন ব্যক্তি লেখেন, আমি টুইটারে সব সময়ই তোমাকে বিরক্ত করব। গুলাতি সানকে জানান, এসব মন্তব্য দেখার পর তিনি ভেঙে পড়েন। তার ভাষায়, বর্ণ নিয়ে টুইটারে আমাকে আক্রমণ করায় আমি প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছি। আমার মনে হচ্ছিল, আমরা আর আধুনিক যুগে নই, সত্তরের দশকে ফিরে গেছি। তিনি আরও বলেন, শুরুর দিকে তিনি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও লাভ হয়নি। তিনি বলেন, আমি চেষ্টা করেছি বিষয়টি আমলে না নিতে। কিন্তু তাদের মন্তব্য ক্রমেই সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছিল। তাই বাধ্য হয়েই এখান থেকে ইতি টেনে নিয়েছি।

আসছে নিখুঁত ছবির ক্যামেরা

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনার ইঞ্জিনিয়ার ডেভিড ব্র্যাডি এবং ডিউক প্র্যাট স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের প্রফেসর মাইকেল জে. ফিটজপ্যাট্রিক একটি তাক লাগানো ক্যামেরা তৈরি করেছেন। প্রকল্পটিতে সহযোগিতা করেছেন ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া এবং ইউনিভার্সিটি অব অ্যারিজোনার বিজ্ঞানীরা। এটি ৫০ গিগাপিক্সেল বা ৫০,০০০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। ক্যামেরাটিতে রয়েছে ৯৮টি ছোট ক্যামেরা। এই ক্যামেরাগুলো একসঙ্গে এমনভাবে কাজ করে যে, এটি ব্যবহার করে যে কোনো কিছুর পরিষ্কার ছবি তোলা যায়। নির্মাতারা প্রোটোটাইপ ক্যামেরাটির নাম দিয়েছেন ‘অ্যাওয়ার টু’ ক্যামেরাটি তৈরিতে অর্থের জোগান দিয়েছে ইউনাইটেড স্টেটস ডিফেন্স অ্যাডভান্স রিসার্চ প্রজেক্ট এজেন্সি, সংক্ষেপে ডারপা। ক্যামেরাটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ ৩০ ইঞ্চি এবং পেছনের দিকে ২০ ইঞ্চি। ‘অ্যাওয়ার টু’ নিয়ে ইঞ্জিনিয়ার ডেভিড ব্র্যাডি বলেন, এর মাইক্রো ক্যামেরাগুলো কোন কিছুর ছবি এতই পরিষ্কারভাবে তোলে যে, সূক্ষ্ম বৈশিষ্ট্যগুলোকেও সহজে খুঁজে পাওয়া যায়। ৯৮টি মাইক্রো ক্যামেরার ছবি একসঙ্গে করে পুরো একটি ছবি তৈরি করে ক্যামেরাটির কম্পিউটার প্রসেসর। ফলে ফটোগ্রাফারের চোখ এড়িয়ে যাওয়া অনেক জিনিসই ফুটে ওঠে ক্যামেরাটির তোলা ছবিতে।

ফ্রিতে ভিডিও কিংবা অডিও কল করুন

Fring সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনি পৃথিবীর যে কোন জায়গায় ফ্রি ভিডিও কিংবা অডিও কল করতে পারবেন। আপনি যার সঙ্গে কথা বলবেন তার ফোনেও এ সফটওয়্যারটি থাকতে হবে এবং ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে।
এই সফটওয়্যারটি ডাউনলোড লিংক : htp://syfiles.com/6ixw7ozzfh4k/fring91.sis.html নোকিয়াসহ যে কোন ব্র্যান্ডের সিম্বিয়ান ফোনে ব্যবহার করতে পারবেন। Fring সফটওয়্যারটি ইন্সটল করার পর আপনি একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন। এরপর আপনি যার সঙ্গে কথা বলতে চান তার ঋৎরহম আইডিটি আপনার আইডির সঙ্গে অ্যাড করুন। এভাবে যাদের সঙ্গে কথা বলতে চান তাদের সবার Fring আইডি অ্যাড করুন। এবার Fring দিয়ে ফ্রি কথা বলুন। আপনি ইচ্ছা করলে ইউরো কিংবা ডলার রিচার্জ করে পৃথিবীর যে কোন মোবাইল ফোনেও কথা বলতে পারবেন। ওদের কলরেটও কম আছে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...