The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সাবেক ইরানি প্রেসিডেন্ট বাসে চড়ে কর্মক্ষেত্রে যাতায়াত করেন!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ আমাদের দেশের মানুষকে যদি এমন কথা বলা হয় যে সাবেক একজন প্রেসিডেন্ট বাসে যাতায়াত করেন তাহলে কেও হয়তো বিশ্বাসই করবেন না। কিন্তু ঘটনাটি সত্যি। আর তা হলো সাবেক ইরানি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ বাসে চড়ে কর্মক্ষেত্রে যান!

Former Iranian president and bus travel

এমন ঘটনা আসলে কল্পনা করা কঠিন হলেও এক সময়ের ইরানের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় কর্তা এখন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা শুরু করেছেন। আবার তিনি প্রতিদিন কর্মক্ষেত্রে যাচ্ছেন বাসে চড়ে! তিনি হলেন ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ।

টানা দ্বিতীয় মেয়াদের রাজনৈতিক জীবন হতে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে সাবেক এই প্রেসিডেন্ট তার মূল পেশা শিক্ষকতায় ফিরে গিয়েছেন। এ বছরের শুরুর দিকে তিনি একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনাও শুরু করেছেন।

ইনসার্ভিয়া নিউজ বলেছে, কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার জন্য আহমাদিনেজাদ এখন প্রতিদিন বাসে চড়ে বসেন। বাসই তার যাতায়াতের প্রধান বাহন। ইরানের সাবেক এই প্রেসিডেন্ট আহমাদিনেজাদ ১৯৫৬ সালে তেহরানের নিকটবর্তি গার্মসার নামে একটি শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ছোটবেলা থেকে তিনি অতি সাধারণ জীবন-যাপন করে আসছেন। তিনি সবসময় দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকাও রেখেছেন।
ইরানের সাবেক এই প্রেসিডেন্ট তেহরান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হতে ট্রাফিক অ্যান্ড ট্রান্সপোর্ট বিষয়ের উপর পিএইচডি করেন। আহমাদিনেজাদ রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন ১৯৭০ সালের শেষের দিকে ‘সারকর্ড’ শহরের মেয়রের উপদেষ্টা হিসেবে। আহমাদিনেজাদ ১৯৮০ সালে আর্মিতে যোগ দেন। এরপর তিনি তুর্কী বর্ডারের কাছে ‘মাকু’ শহরের মেয়র পদেও নিযুক্ত হন।

১৯৯০ এর শেষের দিকে তিনি ‘আরদাবিল’ শহরের গভর্নর পদে নিযুক্ত হন। তারপর তিনি হার্ডলাইন রেভুলেশনারি গাডের্র বিশেষ বাহিনীর প্রধানের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। আহমাদিনেজাদ ২০০৩ সালে তেহরানের মেয়র পদে নির্বাচিত হন। এরপর ব্যাপক জনসমর্থন নিয়ে আহমাদিনেজাদ ২০০৫ সালে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালে দ্বিতীয় দফায় আবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন মাহমুদ আহমাদিনেজাদ। সাংবিধানিক বাধা থাকায় ২০১৩ সালের নির্বাচনে আর দাঁড়াতে পারেননি আহমাদিনেজাদ।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...