বিয়ের আগে বউকে অপহরণ! এ কেমন ঐতিহ্য?

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বিয়ে করার জন্য অপহরণ করার ঘটনা দু’চারটে আমাদের দেশেও ঘটে থাকে। কিন্তু তাই বলে ঐতিহ্য ধারণ করে বিয়ের আগে বউকে অপহরণ! এ আবার কোন ধরনের ঐতিহ্য?

Kidnapped before the wedding

বিয়ে করার জন্য অপহরণ করার ঘটনা দু’চারটে আমাদের দেশেও ঘটে থাকে। কিন্তু তাই বলে ঐতিহ্য ধারণ করে বিয়ের আগে বউকে অপহরণ! এ আবার কোন ধরনের ঐতিহ্য? এমন প্রশ্ন কি আসতে পারে না?

কিরগিজস্তানের এমন ঐতিহ্যকে একটি ‘নিষ্ঠুর ঐতিহ্য’ বলে ধরা হচ্ছে। কারণ হলো বিয়ের আগে বউ অপহরণ করা, এটি আবার কি ধরনের ঐতিহ্য। শুধু যে অপহরণ করে বিয়ে করবে তা নয়। সেখানে নিয়মটি এমন, তাহলো একজন অবিবাহিত নারীকে যার বিয়ে করার ইচ্ছা হয়, তাকে কিডন্যাপ বা অপহরণ করতে হয়। তারপর যে পর্যন্ত সে বিয়ের জন্য রাজি না হন, তার উপর চলে নিষ্ঠুর নির্যাতন!

সাম্প্রতিক সময়ে একটি স্থানীয় এনজিও এর ওপর গবেষণায় বেরিয়ে আসে এমন তথ্য। জানা যায়, কিরগিজস্তানের পঞ্চাশ শতাংশ বিবাহ ঠিক এভাবেই সম্পন্ন হয়ে থাকে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, মেয়েদের তুলে নিয়ে গিয়ে তাকে প্রচুর মানসিক চাপের মধ্যে রাখা হয়। অপহৃত মেয়ে বিয়ে করতে রাজি না হলে, ছেলের বাড়ির মহিলারা মেয়ের মগজ ধোলাই শুরু করেন। এরপরও বিয়ের জন্য রাজি না হলে মেয়ের সঙ্গে ধর্ষণের মতো জঘন্য কাজও করা হয়ে থাকে।

এমন উদ্ভট ঐতিহ্যের ব্যাপারে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের কাহিনী শোনা যায়। তবে কিরগিজস্তানের দরিদ্র অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে এই অবস্থার কোনো পরিবর্তন করা যাচ্ছে না বলে স্থানীয় এনজিওরা মত প্রকাশ করেছেন।

এনজিওগুলো বলছে, অপহরণ করাকে কোনো খারাপ কাজ মনে করে না স্থানীয়রা। মেয়েরা যদি বিয়ের জন্য রাজি না হয়, তাহলে তাদেরকেই দোষী বলে সাব্যস্ত করা হয়।

জানা যায়, এই ধরনের নৃশংস কাজ বন্ধ করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে এখনও তা যথেষ্ট নয়। প্রতিদিন প্রায় ৩২ জন নারীকে বিবাহের জন্য অপহরণ করা হয়ে থাকে বলে জানা গেছে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, এমন অপহরণের ৭শ’ মামলা হতে মাত্র একজন দোষীকে কাঠগড়ায় দাড় করানো সম্ভব হয়। বেশীরভাগ অপহৃত মহিলা ভয়ে শেষ পর্যন্ত বিয়েতে রাজি হয়ে যায়। আবার অনেকে আত্মহত্যার মতো কাজ করে জীবন নিজ হাতেই শেষ করে ফেলে। এভাবেই পালিত হচ্ছে সেখানকার ঐতিহ্যবাহী ‘অপহরণ বিয়ে’!

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...