The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

আইফোন নিয়ে বিশ্বজুড়ে তোলপাড়: জেনে নিন ৩টি আইফোনের তুলনামূলক ফিচার

অ্যাপলের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আইফোন ১০ বা আইফোন এক্স প্রকাশ করে সবচেয়ে বড় চমক দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আইফোন রিলিজ হওয়ার পর থেকে বিশ্বজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ১২ সেপ্টেম্বর ভক্তদের বহুল প্রতীক্ষার অবসান হয়। ওইদিন বাজারে আসে আইফোন ৮ ও আইফোন ৮ প্লাস।

আইফোন নিয়ে বিশ্বজুড়ে তোলপাড়: জেনে নিন ৩টি আইফোনের তুলনামূলক ফিচার 1

তবে ওই অনুষ্ঠানে অ্যাপলের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আইফোন ১০ বা আইফোন এক্স প্রকাশ করে সবচেয়ে বড় চমক দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এই ৩টি আইফোনই বাজারে পাওয়া যাবে ২২ সেপ্টেম্বর হতে। এখন গ্রাহকদের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কোন ফোনটি কিনবেন? আইফোন ৮, আইফোন ৮ প্লাস না আইফোন ১০ বা এক্স। সম্প্রতি প্রকাশ হয়েছে ৩টি ফোনের তুলনামূলক ফিচার।

আইফোন ৮-এর আকার হলো ৪ দশমিক ৭ ইঞ্চি। অপরদিকে আইফোন ৮ প্লাসের আকার নির্ধারণ করা হয় ৪ দশমিক ৭ ইঞ্চি। তবে আকারের দিক থেকে সবচেয়ে বড় আইফোন এক্স। এটির আকার ৫ দশমিক ৫ ইঞ্চি। শুধুমাত্র আকারেই নয়, রেজ্যুলেশনেও আইফোন ৮ এবং আইফোন ৮ প্লাসকে ছাড়িয়ে গেছে আইফোন এক্স। আইফোন এক্সের রেজ্যুলেশন ২,৪৩৬x১.১২৫ পিক্সেল। অপরদিকে আইফোন ৮ এবং আইফোন ৮ প্লাসের রেজ্যুলেশন যথাক্রমে ১,৩৩৪x৭৫০ পিক্সেল এবং ১,৯২০x১০৮০ পিক্সেল।

স্ক্রিণের ধরনেও বেশ এগিয়ে রয়েছে আইফোন এক্স। এটিতে রয়েছে সুপার রেটিনা এবং এলইডি। অপরদিকে আইফোন ৮-এর স্ক্রিণে রয়েছে রেটিনা এইচডি আইপিএস প্রযুক্তি ও আইফোন ৮ প্লাসে রয়েছে রেটিনা এইচডি আইপিএস এলসিডি।

তবে ব্যাটারির ক্ষেত্রে একটু ব্যতিক্রম রয়েছে। এক্ষেত্রে আইফোন এক্সকে হারিয়ে দিয়েছে আইফোন ৮ প্লাস। যেখানে আইফোন ৮ প্লাসে টানা ২১ ঘণ্টা কথা বলা সম্ভব হবে। বলা হয়েছে ১৩ ঘণ্টা টানা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করা যাবে। অথচ আইফোন এক্সে কথা বলা যাবে ২১ ঘণ্টা, তবে ব্রাউজিং করা যাবে মাত্র ১২ ঘণ্টা। আবার পিছিয়ে নেই আইফোন ৮। এতে একটানা কথা বলা যাবে ৮ হতে ১৪ ঘণ্টা। ইন্টারনেট ব্রাউজিং করা যাবে ১২ ঘণ্টার মতো।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, ইন্টারনাল স্টোরেজের ক্ষেত্রে সমতা রাখা হয়েছে ৩টি ফোনেই। প্রতিটি ফোনেই দুটি করে সংস্করণ বাজারে পাওয়া যাবে। একটি ৬৪ জিবির সংস্করণ, আর অপরটি ২৫৬ জিবির সংস্করণ। তবে ইন্টারনাল স্টোরেজের ক্ষেত্রে না হলেও, ৩টি মোবাইলের সামনে এবং পেছনে ৩টি ক্যামেরাতেই রয়েছে সমতা। প্রতিটি আইফোনের পেছনের ক্যামেরা ১২ মেগাপিক্সেল রাখা হয়েছে। সামনের ক্যামেরা রাখা হয়েছে ৭ মেগাপিক্সেল। সামনে এবং পেছনের ক্যামেরায় ছবি তোলার জন্য রয়েছে অগমেন্টেড রিয়েলিটি, ত্রিমাত্রিক ভার্চুয়াল ছবি তোলার সুযোগও। এতে করে শুধু ছবি তোলার ব্যক্তিটিকেই নয়, তার আশপাশের পরিবেশ এবং সময়কে ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম!

প্রতিটি আইফোনে ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যাণ প্রযুক্তির জায়গা দখল করবে ফেস রিকগনিশন প্রযুক্তি। অর্থাৎ ব্যবহারকারীর মুখ হবে এর লক খোলার পাসওয়ার্ড। ব্যবহারকারীর চেহারা চিনতে এক সেকেন্ডের ১০ লাখ ভাগের এক ভাগ সময় নেবে নতুন এই ফোনগুলো। ৩টি আইফোনেই চার্জিংয়ের ঝামেলা এড়াতে থাকছে তারবিহীন চার্জিং সিস্টেমও!

জানা গেছে, আইফোন ৮-এর দাম শুরু হবে ৬৯৯ মার্কিন ডলার এবং আইফোন ৮ প্লাসের দাম শুরু হবে ৭৯৯ মার্কিন ডলার হতে। অপরদিকে ৬৪ জিবি সংস্করণের আইফোন এক্স এর দাম পড়বে ৯৯৯ ডলার। ২৫৬ জিবি সংস্করণের আইফোন এক্স -এর দাম পড়বে ১ হাজার ১৪৯ ডলার পড়বে বলে জানা গেছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...