রাম রহিমের দুশ্চিন্তায় হানিপ্রীতের খাওয়া-ঘুম হারাম!

ভারতের ধর্ষক ‘ধর্মগুরু’ গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের পালিত ‘কন্যা’ প্রিয়াঙ্কা তানেজা ওরফে হানিপ্রীত ইনসান

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের জেল হাজতে থাকা রাম রহিমকে নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে কম লেখালেখি হয়নি। এবার তার পালিত মেয়ে হানিপ্রীতের খবর শিরোনাম হয়েছে। রাম রহিমের দুশ্চিন্তায় হানিপ্রীতের নাকি খাওয়া-ঘুম হারাম!

দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের আম্বালা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রয়েছেন রাম রহিমের পালিত কন্যা হানিপ্রীত। সঙ্গে রয়েছেন তারই সহযোগী সুখদীপ কাউর। তাদের অন্য কারাবন্দিদের নিকট হতে একেবারেই পৃথক রাখা হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভারতের ধর্ষক ‘ধর্মগুরু’ গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের পালিত ‘কন্যা’ প্রিয়াঙ্কা তানেজা ওরফে হানিপ্রীত ইনসান কারাগারে একেবারেই ভালো নেই। কারাগারে প্রথম দিন রাতে তিনি কিছুই খাননি। নির্ঘুম কাটিয়েছেন পুরো রাত।

সংবাদমাধ্যমটির খবরে আরও জানা যায়, শুক্রবার কারাগারে যাওয়ার পর রাতে খাবার খাননি হানিপ্রীত। রাতে তিনি ঘুমাননি ঠিকমতো। সেখানে পৌঁছানোর পর বারবার পালক ‘বাবা’ রাম রহিমের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছেন হানিপ্রীত।

হানিপ্রীতের শারীরিক অবস্থা একেবারেই স্বাভাবিক বলে জানিয়েছেন কারা চিকিৎসকরা। তাকে কারাগারে মেনে চলতে হচ্ছে সেখানকার কঠোর নিয়মকানুন। পরদিন শনিবার ভোর ৬টায় তাকে ঘুম হতে তুলে দেওয়া হয়। তারপর গোসল করে নাশতায় দেওয়া হয় দুই টুকরো রুটি।

উল্লেখ্য, হরিয়ানার পঞ্চকুলা আদালত শুক্রবার হানিপ্রীতকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর পূর্বে পাঞ্জাব রাজ্যের জিরকাপুর-পাতিয়ালা মহাসড়কের গাড়ি হতে এক নারীসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। তারপর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে পুলিশী হেফাজতে নেওয়া হয়। অপরদিকে গত ২৫ আগস্ট হরিয়ানার এই একই আদালতে দুই নারী ভক্তকে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হন রাম রহিম। এরপর সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। ভক্তরা পুলিশের ওপর হামলা করে, গাড়ি ভাঙচুর করে এবং বিভিন্ন স্থানে অগ্নিসংযোগও করে। এতে ৪১ জন নিহত হয়। আহত হয় অন্তত ২০০ জনের মতো। ২৫ আগস্টের সহিংসতার পেছনে তার নিজের হাত ছিল বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে হানিপ্রীত।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...