The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

রূপচর্চায় ডিমের কুসুমের কয়েকটি ব্যবহার জেনে নিন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আমরা জানি প্রোটিনের অন্যতম উৎসই ডিম। এটি শুধু শরীরের প্রোটিনের চাহিদাই পূরণ করে তা নয়, সৌন্দর্যচর্চাতেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

ত্বক ও চুল পরিচর্যায় ডিম ও ডিমের কুসুমের অভাবনীয় বেশ কিছু ব্যবহার রয়েছে। আজ জেনে নিন বিষয়টি।

ব্ল্যাকহেডেস দূর করতে হলে

আপনি কী ব্ল্যাকহেডেসের সমস্যায় বিরক্ত? এই সমস্যার খুব সহজ সমাধান দিতে পারে ডিমের কুসুম। একটি ব্রাশে ডিমের কুসুম লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর ব্রাশটি নাকে লাগিয়ে একটি কাগজ দিয়ে তা ঢেকে দিন। প্রথম লেয়ারটি শুকিয়ে যাওয়ার পর আরেকটি লেয়ার লাগিয়ে নিন। তারপর শুকিয়ে গেলেই ম্যাসাজ করুন। তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

শুষ্ক ত্বকের জন্য করণীয়

প্রথমে একটি ডিমের কুসুম ও এক চা চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন। মুখ পরিষ্কার করে প্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে নিতে হবে। ১০ হতে ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন। এটি শুষ্ক ত্বক ময়োশ্চারাইজ করে ত্বক আরও নরম কোমল করে থাকে।

স্বাস্থ্যোজ্বল চুলের জন্য করণীয়

এক কাপ পরিমাণ টকদই ও একটি ডিমের কুসুম ভালো করে মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে নিন। এবার এই প্যাকটি চুলে লাগিয়ে নিতে হবে। এভাবে কমপক্ষে ২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। তারপর ২০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন। এটি চুল ঝলমলে সিল্কি করে তুলতে সাহায্য করবে।

ব্রণ প্রবণ ত্বকের যত্নে করণীয়

প্রথমে একটি ডিমের কুসুম, এক চা চামচ মধু ও এক চা চামচ বাদাম তেল নিয়ে নিন। একটি পাত্রে সবগুলো উপাদান ভালো করে মিশিয়ে নিন। এমনভাবে মেশান যাতে ফেনা ওঠে। তারপর প্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে নিন। ১৫ মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন।

নখের ভঙ্গুরতা দূর করতে যা করবেন

নখের ভঙ্গুরতা দূর করতে হলে মধু ও ডিমের কুসুম মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণে নখ ভিজিয়ে রাখুন অন্তত ১৫ মিনিট। এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন। এবার কুসুম গরম পানি দিয়ে হাত দুটি ধুয়ে ফেলুন।

ডিম-গাজরের ফেসপ্যাক ব্যবহার

প্রথমে একটি ডিমের কুসুম, এক টেবিল চামচ ঘন ক্রিম ও এক টেবিল চামচ ফ্রেশ গাজরের রস মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে নিন। এরপর এই প্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে ৫ হতে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এটি শুকিয়ে গেলে কুসুম গরম পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকে রক্ত চলাচল বজায় রাখে এবং ত্বক উজ্জ্বল ও তারুণ্যদীপ্ত করে তুলতে সাহায্য করে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...