The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মাথায় আঘাত পেয়ে বনে গেলেন তুখোড় গণিতবিদ!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ মাথায় আঘাত পেয়ে একবার স্মৃতি চলে যায়, পরের আঘাতে আবার সব মনে পড়ে যায়। নাটক সিনেমায় এমনটা অনেক দেখা যায়। কিন্তু বাস্তবে খুব একটা নজরে আসে না। সম্প্রতি এমন এক ঘটনা ঘটলো যুক্তরাষ্ট্রে। এক অতি সাধারণ লোক মাথায় আঘাত পেয়ে দিব্যি তুখোড় গণিতবিদ বনে গেলেন।


maths

এই ঘটনা ঘটেছে ওয়াশিংটনের ট্যাকোমায়। জেসন পেজেট একজন সাধারণ আসবাবপত্র বিক্রয়ের সেলসম্যান ছিল। ২০০২ সালে সে একটি কারাওকি বারের বাইরে দুই জন লোক দ্বারা আক্রান্ত হয়। মাথায় কিছু জখম সহ কিডনিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিল সে।

পরবর্তিতে সুস্থ হলেও মানসিকভাবে তার কিছু সমস্যা দেখা দেয়। সে যাই দেখে তাতেই জ্যামিতিক আকৃতি খুঁজে পায়। এমনকি সে জটিল জ্যামিতিক কাঠামো আঁকতেও শুরু করে। সে যখন কোন গাণিতিক সমীকরণ দেখে সেখানে উপযুক্ত জ্যামিতিক আকার দেখতে পায়। একে বলা হয় সিনেস্থেসিয়া, যার ফলে লোকজন নির্দিস্ট রঙ দেখলে তার গন্ধ খুঁজে পায়।

একদিন মার্কেটে জ্যামিতিক আকৃতি তৈরি করতে দেখে এক পদার্থবিদ তাকে তার সাথে কাজ করার প্রস্তাব দেয়। নাম্বার থিওরি নিয়ে উক্ত গবেষণায় তার মেধা দেখে মস্তিষ্ক বিশেষজ্ঞরা এর কারণ উতঘাটনে আগ্রহী হয়ে উঠে।

Savant-Syndrome-Man-Becomes-Math-Genius-After-Suffering-Brain-Injury

মিয়ামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিলসফির অধ্যাপক বেরিট ব্রোগাট ও তার দল জেসনের মাথায় fMRI করে। তারা দেখতে পায়, খুলির বাম পাশটা সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল। মূলত এপাশটাই বুদ্ধিমত্তার নানান কাজ সম্পাদন করে এবং বিভিন্ন স্নায়ুর তথ্য সমন্বয় করে। মস্তিষ্কের কোষ মারা গেলে এগুলো রাসায়নিক পদার্থ ত্যাগ করে যা আশে পাশের এলাকার কোষগুলোকে সক্রিয় করে। জেসনের এমনটা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে জেসন পেজেট “Struck by Genius” শিরোনামে একটি বই লিখেছে। এটি থেকে এই অভাবনীয় ঘটনার আরো বিস্তারিত জানা যাবে।

সূত্রঃ timesofindia

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...