The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ছিনতাই থেকে জনগণকে রক্ষায় এসিপি মাশরুফ হোসেনের ওপেন চ্যালেঞ্জ!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ সম্প্রতি ঢাকার গুলশান এবং বনানী এলাকায় কিছু ছিনতাইকারী প্রিমো এবং এলিয়ন গাড়িতে করে এসে সাধারণ মানুষের মোবাইল, টাকা নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়ার ভিত্তিতেই ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট জোনের গুলশান ক্রাইম ডিভিশনের এসিপি মাশরুফ হোসেন ওপেন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছেন ছিনতাই থামাতে।


1982267_1385539721722995_1294256920_n

দেশে ছিনতাই, ডাকাতি অথবা কিলিং মিশন সম্প্রতি বৃদ্ধি পেয়েছে। দামি গাড়িতে চড়ে ছিনতাই-ডাকাতি করছে ঢাকার কিছু এলাকায় ছিনতাইকারীরা। দেখতে সুদর্শন। চড়ে দামী গাড়িতে। ওদের কয়েকটি দল রয়েছে। ওদের কাজ হচ্ছে ছিনতাই কিংবা ডাকাতি। প্রয়োজনে খুনও করে ওরা। সম্প্রতি কিছু ভুক্তভোগী তাদের ফেসবুকের স্ট্যাটাস এবং ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট জোনের গুলশান ক্রাইম ডিভিশনের এসিপি মাশরুফ হোসেনকে ব্যক্তিগতভাবে জানান, ঢাকার গুলশান এবং বনানীর কিছু এলাকায় রাতের বেলা এবং ভোরের দিকে ছিনতাইয়ের প্রকোপ অনেক বেড়ে গেছে। সেখানে ছিনতাই কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে আধুনিক ব্যবস্থা। তাদের প্রধান টার্গেট ব্যাংকের ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড। ছিনতাইয়ের শিকার ব্যক্তির কাছে ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড দুটির একটি থাকতেই হবে, অন্যথায় মারধর তো আছেই, অনেক সময় প্রাণও হারাতে হয় হতভাগ্য যাত্রীকে।

৫ থেকে ৬ জনের একটি দল প্রিমো কিংবা এলিয়ন গাড়িতে করে এসে রাস্তায় কিংবা রিকশায় চলাচল করা সাধারণ মানুষকে ধারালো ছুরি এবং অস্ত্রের মুখে হুমকি দেয় সাথে থাকা সব কিছু দিয়ে দিতে। যারা হুমকিতে কিছু দিতে রাজি হয়না তাদের অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয় এবং পাশে ছুড়ে ফেলে রেখে দ্রুত সরে যায় গাড়ি নিয়ে এই চক্র।

সম্পূর্ণ বিষয়টি এসিপি মাশরুফ হোসেনের দৃষ্টি গোচর হলে তিনি এই বিষয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে আলোচনা করেন এবং ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট জোনের গুলশান ক্রাইম ডিভিশনে যেকোনো প্রকার সন্ত্রাস ছিনতাই রোধে ব্যবস্থা গ্রহণের অনুমতি নিয়েই সরাসরি ওই এলাকায় টহল শুরু করেন। এই টহলে তার সাথে রয়েছে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট জোনের গুলশান ক্রাইম ডিভিশনের Special Force.

13596_597586010277123_1156109915_n

এসিপি মাশরুফ হোসেন তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে জানিয়েছেন তিনি ব্যক্তিগতভাবে কিছু ভুক্তভোগীর সাথে কথা বলেছেন এবং উক্ত এলাকায় যখনি কেও আক্রান্ত হবেন তাৎক্ষণিক এসিপি মাশরুফ হোসেনের ব্যক্তিগত নাম্বারে (01713398342) ফোন দিয়ে তাকে যেন অবিহিত করেন। এছাড়া এসিপি মাশরুফ হোসেন নিজে নীলক্ষেত/ক্যান্টনমেন্ট এলাকার রাস্তায় সেহেরির সময় এবং রাতে টহল দিবেন। এসময় তিনি যদি দেখতে পান কেও কিংবা কোন দল সাধারণ নাগরিককে অস্ত্র দেখিয়ে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করছে তবে তাৎক্ষণিক তিনি তার সাথে থাকা আধুনিক অস্ত্র ব্যবহার করতে দ্বিধা করবেন না। এক্ষেত্রে তিনি বলেন, আমার উপরের নির্দেশ আছে, প্রয়োজনে আমি আমার অস্ত্রের প্রয়োগ করব

এসিপি মাশরুফ হোসেন সবাইকে আতংকিত না হয়ে শান্ত থাকতে বলেন এবং যেকোনো সমস্যায় তা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীসহ তার নিজের নাম্বারে অবহিত করতে আহ্বান জানিয়েছেন।

এখন দেখার বিষয় হচ্ছে এসিপি মাশরুফ হোসেন উক্ত স্থানের সাধারণ জনগণের কতোটা নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারেন। এভাবে দেশের সব পুলিশ সদস্য জনগনের পাশে এসে দাঁড়ালে এবং সঠিক সময়ে সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিলে অনেক সাধারণ মানুষ বিপদ থেকে রক্ষা পায় এবং সর্বস্ব না হারিয়ে নিরাপদে রাস্তায় নামতে পারে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...