The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বিশ্বাস ভঙ্গের কষ্ট যেভাবে সামাল দিবেন…

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ মানুষে মানুষে সম্পর্ক টেকে অনেকটা বিশ্বাসের জোরে। এটি এমন একটি জোর যা আন্তরিকতা, ভালবাসা, মায়া-মমতা বাড়িয়ে দেয়। বিশ্বাস দুইজন মানুষকে কাছে আনে। তাই কোন কারণে বিশ্বাস ভেঙ্গে গেলে মনের জোর হুড়মুড় করে ভেঙ্গে পড়ে। চারপাশের সবকিছু তখন মিথ্যা মনে হয়। ক্রোধ, কষ্ট, হতাশা সব মিলিয়ে খুব খারাপ অবস্থা বিরাজ করে। তবে এই অবস্থা আপনার ক্ষতি ছাড়া ভাল কিছু করবে না। তাই এই অবস্থা থেকে উত্তরণের উপায় জানা খুবই জরুরি।


khalil-gibran-joy-and-sorrow-quotes-images

পুনঃপুন ভাবুনঃ
বিষয়টি ভাল করে ভাবুন। আপাত দৃষ্টিতে যা মনে হয়েছে তা আদৌ ঠিক কিনা তার খোঁজ নিন। ব্যাপারটিতে আপনার কোন দোষ আছে কিনা তাও যাচাই করুন। সবচেয়ে ভাল হয় বিষয়টি আগা গোড়া অন্যজনের সাথে আলোচনা করুন। এতে হয়ত দুজনের মধ্যকার ভুল বুঝাবুঝি সহ অনেক কিছু পরিষ্কার হয়ে যাবে।

এগিয়ে চলুনঃ
যদি সত্যিই সে প্রতারনা করে, আপনার বিশ্বাস ভেঙ্গে থাকে তবে মনে রাখবেন, এটি জীবনের ছোট্ট একটি ঘটনা মাত্র। জীবন অনেক সম্পর্ক, দ্বায়িত্ব, কর্তব্যের বেড়াজালে বাঁধা। একটি ঘটনার জন্য তা স্থবির হয়ে যেতে পারে না। প্রতারণার কারণে যদি বিশ্বাস ভেঙ্গে যায় তবে অনেকে একদমই ভেঙ্গে পড়েন। তারা মনে করেন জীবনটা বুঝি এখানেই শেষ হয়ে গেলো। আবার কেউ কেউ করে ফেলেন আত্মহননের মতো ভুল। এক্ষেত্রে দৃষ্টি আকর্ষন করছি, প্রতারনার মত জঘন্য কাজ করল অন্যে, আর শাস্তি দিলেন নিজেকে নিজে, ব্যাপারটি মোটেও সুস্থ মস্তিষ্কের চিন্তা নয়। ব্যাপারটি ভুলার চেষ্টার পাশাপাশি স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে থাকুন।

ব্যস্ত থাকুনঃ
বিশ্বাস ভঙ্গের দহনে যখন দগ্ধ হয় আপনার মন, বারবার ঘুরপাক খায় মনের মাঝে, তখন নিজেকে অন্য কাজে ব্যস্ত রাখা বুদ্ধিমানের কাজ। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি কাজে নিজেকে জড়িয়ে ফেলুন। এতে মনকে অন্য দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া যাবে। অবশ্যই কার্যকর কিছু করার চেষ্টা করবেন।

বিশ্বাস রাখুনঃ
একজন আপনার বিশ্বাস নষ্ট করেছে বলে মানুষের প্রতি বিশ্বাস হারাবেন না। অবশ্যই সব মানুষ ভাল নয়, তবে সবাই একরকমও নয়। তবে ঘটে যাওয়া ঘটনে থেকে শিক্ষা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করেই মানুষকে বিশ্বাস করতে হবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। সামনে অনেক আনন্দ বাকি। তাই সব ভুলে এগিয়ে চলুন।

ক্ষমা করে দিনঃ
আপনার সাথে যে বিশ্বাস ঘাতকতা করল তাকে ক্ষমা করে দিন। এটি মানুষ হিসেবে আপনাকে অনেক বড় করবে। এছাড়া মনের মধ্যে থাকা কষ্ট, রাগ চলে যাবে। মানসিক ভাবে শান্তি পাবেন। তবে তার খারাপ দিক দেখিয়ে দেওয়া উচিত। নাহয় অন্যের সাথেও একই কাজ করতে পারে সে।

নিজেকে ভালবাসুনঃ
সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল নিজেকে ভালবাসা। আপনি নিজেকে ভালবাসলে অন্যকে ভালবাসতে পারবেন। এছাড়া বিশ্বাসঘাতকতা, সম্পর্কের ভাঙা গড়া কোনো কিছুই আপনার মনে খুব বেশি বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারবে না।

এই ব্যাপারগুলো ঠিক ভাবে অনুসরণ করলে আপনার কষ্ট অনেকটাই কমে যাবে। কষ্টকে প্রেরণা হিসেবে গ্রহন করলে জীবনকে আনন্দদায়ক করে তোলা যায়।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...