The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সন্তানকে অনাকাঙ্খিত সাইট ভিজিট করা থেকে বিরত রাখতে আপনার করণীয়

বেশিভাগ শিশুই ভাল কিছুর প্রতি আসক্ত হওয়ার পরিবর্তে খারাপ কাজের প্রতি বেশি আসক্ত হচ্ছে

দি ঢাকা টাইমস ডেস্ক।। একটি সন্তানের বাবা-মা হিসেবে আপনার সবচেয়ে বড় দায়িত্ব হচ্ছে সন্তানকে খারাপ কাজ থেকে বিরত রেখে ভাল কাজের প্রতি উৎসাহিত করা। বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নে কিশোর এবং তরুণদের অনলাইনে আসক্ত হতে দেখা যাচ্ছে। বেশিভাগ শিশুই ভাল কিছুর প্রতি আসক্ত হওয়ার পরিবর্তে খারাপ কাজের প্রতি বেশি আসক্ত হচ্ছে।

সন্তানকে অনাকাঙ্খিত সাইট ভিজিট করা থেকে বিরত রাখতে আপনার করণীয় 1

সাধারণত পিতা-মাতা তার সন্তানকে অনলাইনের সাথে পরিচয় হতে দেয় বা বাঁধা প্রদান করে না এই ভেবে যে, তার সন্তান বিশ্বকে ভাল করে জানুক এবং নতুন কিছু শিক্ষা গ্রহণ করুক। কিন্তু বেশিভাগ শিশুই তার বিপরীত করে থাকে। বিভিন্ন অনৈতিক সাইটে প্রবেশ, সারাদিন গেম নিয়ে ব্যস্ত থাকা, বিভিন্ন অশ্লীল ছবি বা ভিডিও দেখা সহ নানা অসামাজিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে।

আবার সন্তানকে অনলাইন থেকে পুরোপুরি সরিয়ে রাখাও ঠিক হবে না। কারণ অনলাইন হচ্ছে ভার্চুয়াল শিক্ষক। অজানাকে জানতে হলে খুব কম সময় ব্যয় করেই আপনি সেই বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। তবে সব সময় তো আর সন্তানের পেছনে পেছনে থাকা সম্ভব নয়। আবার এটি দেখতেও ভাল দেখায় না। আবার ঠিকমত খোঁজ না রাখলেও বিপদ হতে পারে। তাই অনলাইনে খারাপ সাইট ভিজিট, থেকে বিরত রাখতে হলে আপনাকে একটু কৌশলী হতে হবে।

এর জন্য আপনি প্যারেন্টাল কন্ট্রোল সিস্টেম বা বিভিন্ন অনলাইন প্রটেকশন এন্ট্রিভাইরাস ব্যবহার করতে পারেন। বাজারে প্যারেন্টাল কন্ট্রোলসহ বেশ কিছু অ্যান্টিভাইরাস পাওয়া গেলেও বাংলাদেশি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান রিভ সিস্টেমস উদ্ভাবিত ‘রিভ অ্যান্টিভাইরাস’ সর্বাধুনিক সুবিধাসম্পন্ন। এতে ব্রাউজার থেকে যেকোনো সাইট ব্লকিং ছাড়াও রয়েছে ক্যাটাগরিভিত্তিক ব্লকিং; যেখানে অ্যাডাল্ট, গ্যাম্বলিং ইত্যাদিসহ রয়েছে অর্ধশতাধিক ক্যাটাগরি।

এর ফলে আপনি খুব সহজেই নির্দিষ্ট সাইট বা নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি সম্পন্ন বিষয় ব্লক করে রাখতে পারেন। এতে আপনার সন্তান সেই ডিভাইস ব্যবহার করে কোন ব্লক করা সাইট বা ব্লক করা ক্যাটাগরির কোন বিষয় ভিজিট করতে পারবে না। আপনি চাইলে নির্দষ্ট সময় অনুযায়ীও ব্লক করে রাখতে পারেন। অর্থাৎ আপনার ব্লক করা সময়ে আপনার সন্তান ওই সাইটগুলো ভিজিট করতে পারবেন না।

আবার আধুনিক যুগের শিশুরা এতটাই চালাক যে, সে সাইটগুলো ভিজিট করছে তা যেন পিতা-মাতা পরে দেখতে না পারে, সেই জন্য কোন সাইট ভিজিটের পর হিস্টোরি ডিলেট করে দেয়। তবে আপনিও চাইলে আরো বেশি চালাক হয়ে যেতে পারেন। রিভ অ্যান্টিভাইরাসের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে আপনি কোন সাইট ব্লক না করেই আপনার সন্তানের ল্যাপটপ বা ডেস্কটপে সার্ভেইলেন্স মোডে নজর রাখতে পারেন। এতে আপনার সন্তান বুঝতেও পারবে না আবার আপনাকে কোন সাইট ব্লক করে রাখতেও হবে না।

সার্ভেইলেন্স মোড চালু করে আপনার পছন্দমত কিছু ক্যাটাগরি নির্বাচন করে দিন। এখন আপনার সন্তান যখনি সেই সিলেক্ট করা ক্যাটাগরি সম্পন্ন কোন সাইট ভিজিট করবে, তখনি আপনার ফোনে একটি নোটিফিকেশন আসবে। এখন আপনি আপনার সন্তানকে হাতে নাতে ধরতে পারবেন। তবে এর জন্য তাকে কোন মারাত্মক সাজা না দিয়ে বরং সেই সাইটগুলো ভিজিটের কুফল সম্পর্কে বুঝিয়ে বলুন। দেখবেন সে ধীরে ধীরে সেই সাইটগুলোতে প্রবেশ করা বন্ধ করে দিবে।

মনে রাখবেন, তাকে যদি না বুঝিয়ে বড় ধরণের কোন সাজা দেন, তবে দেখা যাবে বাসার ল্যাপটপে সেই সাইটগুলো ভিজিট করতে না পারায়, কোন বন্ধু বা সাইবার ক্যাফেতে গিয়ে আবার সেই সাইটগুলো ভিজিট করবে।

তাই সাজা না দিয়ে ভাল করে বুঝিয়ে বলুন। তাহলে আপনার সন্তান ভাল হবে। সেই সাথে তার বন্ধুদেরকেও ভাল হতে উৎসাহিত করবে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...