The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এক টাকায় যে দোকানে পাওয়া যায় সকালের নাস্তা!

গত ২০ বছর ধরে এক টাকা মূল্যেই ইডলি বিক্রি করছেন ৮০ বছরের কমলথল

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ এক টাকায় এখন কি পাওয়া যায় যদি আপনাকে কেও প্রশ্ন করে তাহলে আপনি কিছুক্ষণ ভাববেন তার পর উত্তর না পেয়ে হয়তো বলবেন কিছুই পাওয়া যায়না। তবে এক টাকায় সকালের নাস্তা পাওয়া যায় এমন এক দোকানের খবর পাওয়া গেছে!

এক টাকায় যে দোকানে পাওয়া যায় সকালের নাস্তা! 1

কয়েক বছর আগেও হয়তো দোকানি খুচরা না থাকলে এক টাকার বদলে একটি চকলেট ধরিয়ে দিতেন। বর্তমান সেই চকলেটও এক টাকায় পাওয়া যায় না। সেখানে সকালের নাস্তা এক টাকা। এটি কিন্তু শায়েস্তা খাঁর আমলের কথা বলছি না। বলছিলাম ৮০ বছরের কমলথলের গল্প।

তিনি গত ২০ বছর ধরে এক টাকা মূল্যেই ইডলি বিক্রি করছেন। এই ইডলি হলো একধরনের পিঠা। যা ডাল বা নারকেলের চাটনি দিয়ে খাওয়া সম্ভব।

তবে ৩০ বছর পূর্বে যে খাবারের দাম ছিল এক টাকা তা যদি এখনও এই দামেই পাওয়া যায়, তবে তা সত্যিই সস্তা তাতে কোনো সন্দেহ নেই। নামমাত্র মূল্য বললেও বেশি বলা হবে না।

এমনই নামমাত্র মূল্যে খাবার বিক্রি করে আসছেন ভারতের একটি হোটেল। তামিলনাড়ুর ৮০ বছরের কমলথল দিনে ৪০০ থেকে ৫০০ ইডলি বিক্রি করে থাকেন। যার প্রতিটির দাম ভারতীয় মুদ্রায় মাত্র এক টাকা। প্রতিদিন সাড়ে ৫টা থেকে দুপুর পর্যন্ত এই ইডলি বিক্রি করেন কমলথল।

এমন অনেকেই রয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে এখানেই সকালের নাশতা সারেন। এক ক্রেতা জানিয়েছেন, অন্য কোনো দোকানে নাশতা করলে ১০ হতে ১৫ টাকা চলে যায়। এখানে এক টাকা করে কয়েকটি ইডলি খেলেই পেট ভরে যাবে। ক্রেতাদের মতে, তার হাতের ইডলি একবার যে খেয়েছে তার পক্ষে কিছুতেই আর ভোলা সম্ভব নয় এর স্বাদ।

তামিলনাড়ুর ৮০ বছরের কমলথল বলেছেন, অনেক মানুষ রয়েছেন কম খরচে নাশতা সারতে চান। খুব বেশি টাকা খরচ করতে পারে না। এমন সব মানুষদের খাইয়ে আমি সত্যিই আনন্দ পাই।

কেনো এক টাকাতেই ইডলি বিক্রি করেন তামিলনাড়ুর ৮০ বছরের কমলথল, এতো বছরেও কেনো এর দাম বাড়াননি তিনি, এমন প্রশ্নে এই বয়োজ্যেষ্ঠ মুখে হাসি নিয়ে বলেন যে, কোটিপতি হতে চাইলে এতোদিনে হয়তো তিনি সেটা হতেই পারতেন। তবে তার বেশি পছন্দের এই সাদামাঠা জীবন।

অপরদিকে ৮০ বছর বয়সী এই নারীর এই খাবারের ভিডিও ও তার প্রতিদিনের ইডলি তৈরির ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। তার সেই ভিডিও শেয়ার করেন ভারতের গাড়ি কোম্পানি মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রার চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা।

ভিডিও সহ কমলথলের এই খবরটি তিনি টুইট করেন। ক্যাপশনে লেখেন, এমন সরল জীবনযাপন সকলেরই আদর্শ হওয়া উচিত। এই দিদিকে দেখছি এখনও কাঠের উনুনে রান্না করছেন। এমনকি কমলথলের ইডলি বিক্রিতে তিনি সহায়তাও করতে চান সে কথা উল্লেখ করে বলেন, তাকে তিনি দিতে চান এলপিজি গ্যাস স্টোভ।

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরে কমলথলকে নানাভাবে সাহায্য করার জন্য অনেকেই এগিয়ে আসতে শুরু করেছেন। ভারত পেট্রোলিয়াম করপোরেশন লিমিটেড তাকে একটি গ্যাস স্টোভ উপহার দিয়েছে।

Loading...