তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ-৪

ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে তথ্য প্রযুক্তির হাওয়া। তাইতো বর্তমান বিশ্বে তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া ভাবাই যায় না। আজ তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ-৪ এ বিশ্বের বেশ কিছু তথ্য প্রযুক্তির খবর তুলে ধরা হলো।

ইন্সট্যাগ্র্যামকে কেনার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক

১শ’ কোটি ডলার দিয়ে আইফোন ও আইপ্যাডের জনপ্রিয় ফটো-শেয়ারিং অ্যাপ্লিকেশন ইন্সট্যাগ্র্যামকে কেনার ঘোষণা দিল সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুক। ফেসবুকের এমন উদ্যোগ নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা। মোবাইল ফোনের সাহায্যে একে-অপরের সঙ্গে ছবি লেনদেন করার কাজটিকে সহজ করেছে। ইন্সট্যাগ্র্যাম শেয়ার বাজারে প্রবেশের মাত্র এক মাস আগে ছবি শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান ইন্সট্যাগ্র্যামকে কেনার ঘোষণা দিল ফেসবুক।

ইন্সট্যাগ্র্যামের অ্যাপলিকেশনে রয়েছে এমন একটি ফিল্টার, যা দিয়ে এখনকার তোলা ছবিকেও সত্তরের দশকের ছবিতে পরিণত করা যায় কিংবা পোলারয়েড ক্যামেরায় ধারণকৃত ছবির রূপ দেয়া যায়। এসব অনেক সুবিধা থাকার কারণে মাত্র এক বছরের কিছু বেশি সময়ে ইন্সট্যাগ্র্যাম তিন কোটিরও বেশি মানুষকে আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে? এছাড়া ২০১১ সালে আইফোনের অ্যাপলিকেশনগুলোর মধ্যে বর্ষসেরা হওয়ার কৃতিত্বও অর্জন করেছে।

এদিকে ফেসবুকের এমন উদ্যোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওয়েডবুশ প্রতিষ্ঠানের বিশ্লেষক মাইকেল প্যাচটার বলেছেন, ‘ফেসবুক ধীরে ধীরে শিকার ধরার দিকে এগোচ্ছে? তারা এটা নিশ্চিত করতে চায় যে, তাদের পথে কেউ যেন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে না দাঁড়ায়। এটা কেনার মাধ্যমে ফেসবুক তার পথ থেকে এক প্রতিদ্বন্দ্বীকেই শুধু সরিয়ে দিচ্ছে না, একই সঙ্গে ক্রমান্বয়ে আকর্ষণীয় হয়ে ওঠা একটি প্রযুক্তিকেও নিজেদের সেবার কাজে যুক্ত করছে।
অবশ্য সমালোচকদের আশঙ্কাকে নাকচ করে দিয়ে জুকারব্যার্গ জানিয়েছেন, ইন্সট্যাগ্র্যাম কেনা যদি সম্ভব হয়, এরপর আর এমন কোন প্রতিষ্ঠান তারা অধিগ্রহণ করবে না। সূত্র : ম্যাশএবল

ম্যাক পরীক্ষা করবে কম্পিউটার!

বিপুলসংখ্যক অ্যাপল কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়া ফ্ল্যাশব্যাক ম্যালওয়্যার নিয়ে বিশ্বব্যাপী বেশ উত্তেজনা বিরাজ করেছে। তাছাড়া বিষয়টি নিয়ে কম্পিউটার ব্যবহারকারীরাও বেশ চিন্তিত। তবে ম্যাক ব্যবহারকারীর সুবিধার্থে সম্প্রতি ইন্টারনেটে একটি টুল প্রকাশ করেছে। এই টুলটির সাহায্যে কম্পিউটার আক্রান্ত কিনা তা পরীক্ষার করে দেখা যাবে। জানা যায়, ফ্ল্যাশব্যাক চেকার নামের এই টুল ফ্ল্যাশব্যাক নামক ম্যালওয়্যার মুছে ফেলতে সক্ষম নয়। তবে এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা তাদের সিস্টেম স্ক্যান করে জানতে পারবেন তাদের কম্পিউটার আক্রান্ত হয়েছে কিনা। এই টুলের মাধ্যমে যদি জানতে পারেন আপনার কম্পিউটার আক্রান্ত তাহলে তাৎক্ষণিকভাবে ম্যাকের ভাইরাসব্যারিয়ার এক্স৬ অ্যান্টি-ভাইরাস ৩০ দিনের ট্রায়াল হিসেবে ডাউনলোড করার পরামর্শ দিয়েছেন প্রযুক্তিবিদরা। এছাড়াও বিনামূল্যে সহজলভ্য সফোস অ্যান্টি-ভাইরাস ফর ম্যাক হোম এডিশন দিয়েও এই ম্যালওয়্যার দূর করা যাবে বলে জানা গেছে। তবে যেসব ব্যবহারকারী অ্যাপলের থেকে আপডেট আসামাত্রই ইনস্টল করে নিয়েছেন তাদের কম্পিউটার এই ম্যালওয়্যারে কম আক্রান্ত হবে বলে সংশ্লিষ্টরা মতামত প্রকাশ করেছেন। সূত্র : বিবিসি।

মাইক্রোসফট : ফ্রি উইন্ডোজ আর ২ বছর!

সারাবিশ্বের পারসোনাল কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য শুরু হয়ে গেছে মাইক্রোসফটের কাউন্টডাউন। কারণ আর মাত্র দু’বছর পর বিপুল ব্যবহূত মাইক্রোসফটের জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেমস ও মাইক্রোসফট অফিস আর ব্যবহার করা যাবে না।

বিনামূল্যের এ সফটওয়্যারগুলোর জন্য সাপোর্ট বন্ধ করে দিচ্ছে এ কোম্পানিটি। সাম্প্রতিক এক ব্লগপোস্টে বিশ্ববাসীকে সে কথা জানিয়ে দিয়েছে মাইক্রোসফট। এ প্রসঙ্গে মাইক্রোসফটের মার্কেটিং ডিরেক্টর স্টেলা চেরনিয়াক বলেছেন, ‘পুরনো উইন্ডোজ এবং মাইক্রোসফট অফিস ২০০৩ এর যাবতীয় সাপোর্ট বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। উইন্ডোজ এক্সপি ও অফিস ২০০৩ সময়ের সবচেয়ে সফল ও জনপ্রিয় সফটওয়্যার কিন্তু প্রযুক্তির ধারা অনেকটা বদলেছে, তাই উন্নয়নের দিকে মনোযোগ দিতে হচ্ছে।’

তিনি পার্সোনাল কম্পিউটার ব্যবহারকারী বিশেষত ব্যবসায়ীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছেন, ২০১৪ সালের ৮ এপ্রিল এগুলো বন্ধ করে দেয়ার আগে সফটওয়্যারগুলোর সামপ্রতিক সংস্করণ ব্যবহার করতে।
উল্লেখ্য, উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ৮ সংস্করণটি এখন বাজারে। এছাড়া ভিস্তা ও উইন্ডোজ ৭ সংস্করণটিও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। সূত্র : টাইমস্‌ অব ইন্ডিয়া

ইন্টারনেটে গোপনীয়তা রক্ষায় ‘ওয়ান ক্লিক’ প্রস্তাব

ইন্টারনেট ইউজারের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। তাই একজন ইউজারের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষায় নতুন একটি প্রস্তাব দিয়েছে হোয়াইট হাউস। যে কোন ইউজার যাতে খুব সহজেই তার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারেন সেজন্য চলছে ‘ওয়ান ক্লিক’ প্রক্রিয়ায় সমাধানের চেষ্টা।

অনলাইনে ব্যক্তিগত নিরাপত্তা আর তথ্য সুরক্ষার বিষয়টি এখন নিয়মিত আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাধারণ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা যেসব বিষয় ইন্টারনেটে খোঁজ করে কিংবা যেসব বিষয় নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে সেগুলো অনেক সার্চ ইঞ্জিন গোপনে সংরক্ষণ করে। এরপর এসব পছন্দ-অপছন্দের বিষয় মাথায় রেখে সাজানো হয় অনলাইন বিজ্ঞাপন। দেখা গেছে আপনি গুগলে গাড়ি কেনার জন্য কিছু সাইট ভিজিট করলেন। পরে অন্য কোন ওয়েবসাইটে ভিজিট করলে দেখা যাবে সেখানে বিভিন্ন সব গাড়ির বিজ্ঞাপনের ব্যানার ঝুলছে। অনেক সময় আপনার মেলবক্সেও হাজির হবে গাড়ির বিভিন্ন বিজ্ঞাপন।

ব্যাপারটি অনেকে কাকতালীয় মনে করলেও আসলে এর পুরোটাই ইন্টারনেট প্রযুক্তির কল্যাণে সম্ভব হয়েছে। এটিকে কাকতালীয় ভাবার কোন কারণ নেই। আপনি যখন কোন বিষয় সার্চ ইঞ্জিনে খুঁজেন, তখন সেই সার্চ ইঞ্জিন আপনার পছন্দের বিষয়গুলোকে জমা করে। তারপর সে অনুযায়ী বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হয় অন্য সাইটগুলোতে।
অনেকের ধারণা, সার্চ ইঞ্জিন গুগল কিংবা ফেসবুকের মতো সাইটগুলো এভাবেই ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দের বিষয়গুলো জমা করছে। আর এটা আসলে ব্যবহারকারীর অগোচরেই এমনটা করা হয়।
হোয়াইট হাউসের পরিকল্পনা হচ্ছে, ইন্টারনেট ব্রাউজারে একটি অপশন যোগ করা হবে। এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা মাত্র একটি ক্লিকেই জানাতে পারবেন, তার পছন্দ-অপছন্দের বিষয় সার্চ ইঞ্জিন বা অন্য কোন সাইট জমা রাখতে পারবে কিনা।

তিনি যদি তা না চান, তবে সেই তথ্য কোনভাবেই আর ব্যবহার করা যাবে না। গুগল, ইয়াহু, মাইক্রোসফটের মতো সাইটগুলো হোয়াইট হাউসের এ পরিকল্পনায় সম্মতি দিয়েছে ইতিমধ্যে। একই সঙ্গে হোয়াইট হাউস চায়, ব্যবহারকারীরা তার ব্যক্তিগত যে কোন তথ্য ইন্টারনেটে প্রকাশের পর সেটি সংশোধন করার সুযোগ পাবেন। সূত্র : এএফপি, স্পেস মার্ট

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...