The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

যে টিপস জানা দরকার: গোসলের পর দাড়ি কামান

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ যে টিপসগুলো আপনার জানা একান্ত দরকার। যেমন দাড়ি কামানোর বিষয়টি। আমরা সচরাচর গোসলের আগেই দাড়ি কামিয়ে থাকি। কিন্তু তা না করে গোসলের পর দাড়ি কামান। এতে আপনার ত্বকের উপকার হবে।

After bathing, shave the beard

আমরা যারা বাসায় নিজে নিজে দাড়ি কামায় তাদের এই বিষয়টি খেয়াল করা দরকার। কারণ আমরা স্বাভাবিকভাবেই একটি নিয়মে পরিণত করেছি। আর তা হলো গোসলের আগে দাড়ি কামানোর কাজটি করে থাকি। কিন্তু না এটি করা ঠিক না। গোসলের পর দাড়ি কামানো উচিত। পুরুষ-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনে নরসুন্দররা পরামর্শ দিয়েছেন যে গোসলের পরেই দাড়ি কামানো উত্তম। এর কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, গোসলের সময় যে গরমভাব শরীর থেকে বের হয় তা লোমকূপ আলগা করে দিতে সাহায্য করে। ফলে দাড়ি কামাতে সুবিধা হয়। দাড়ি অনেকক্ষণ ধরে ভিজলে কাটতে সুবিধা। এতে ত্বকেরও ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। ২০০৭ সালের ‘জার্নাল অফ ম্যাটেরিয়ালস সায়েন্স’য়ে প্রকাশিত এক জরিপ থেকেও এর সত্যতা মিলেছে। এতে বলা হয়, দাড়ি ভিজে থাকলে ব্লেডে শতকরা ৩০ ভাগ কম চাপ প্রয়োগ করতে হয়। তাই গোসলের পরেই সেভ করা উত্তম সময়।

After bathing, shave the beard-3

দাড়িতে আদ্রতা শোষণের জন্য ৩ থেকে ৪ মিনিট সময় প্রয়োজন হয়। কম চাপ অর্থাৎ কম টানা। গালে বারবার ব্লেড টানা লাগে না, আর এতে চামড়ায় চাপ পড়ে কম, লোমকূপ কম ক্ষতিগ্রস্ত হয়, আবার দাড়ি সুন্দরভাবে কামানো যায়।

দাড়ি কামানোর পূর্বে শেইভিং ক্রিম বা জেল ব্যবহার করেন সবাই। তবে তার আগে আরেকটি জিনিস ব্যবহার করা উচিত, এর নাম ‘প্রিশেইভ অয়েল’। এই তেল মুখের ত্বকের মরা চামড়া উঠিয়ে দাড়ি কামানোতে সুবিধা করে থাকে। আবার শেইভ করার আগে, মুখ কুসুম গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে পারেন।

After bathing, shave the beard-2

জেল অথবা ফোম ব্যবহারের ক্ষেত্রে সাধারণত হাত ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আবার ক্রিম ছাড়াও জেল বা ফোমও ব্রাশ দিয়ে গালে লাগান। এর কারণ হলো ব্রাশের নরম সরু প্রান্ত যতবার মুখের উপর ঘুরবে দাড়ির গোড়া ততই নরম হতে থাকবে। যা আঙুলে হবে না। প্রথম অবস্থায় ফোম, জেল অথবা ক্রিম ব্যবহারের পর ৩০/৪৫ সেকেন্ড অপেক্ষা করুন। তারপর দাড়ি কামান। এতে করে শেইভ করা সহজ হবে।

সবসময় নতুন, ধারালো রেইজর অথবা ব্লেড ব্যবহার করা উত্তম। মুখে শেইভিং ক্রিম, জেল বা ফোম লাগিয়ে প্রথম অবস্থায় দাড়ির সোজা দিকে খুব অল্প অল্প টানে দাড়ি কাটুন।

‘ক্লিন শেইভ’ করার সময় প্রথমেই সোজাভাবে ব্লেড চালানো উচিত। পরেরবার মুখ ফেনা করে উল্টা সোজা যেভাবে আপনার সুবিধা সেভাবেই ব্লেড চালান।

আপনার দাড়ি কামানো শেষে ‘আফটার শেইভ’ ব্যবহার করার পর মুখে অবশ্যই ময়েশ্চারাইজারযুক্ত যে কোনো ক্রিম ব্যবহার করুন। এতে মুখ মসৃণ থাকবে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...