The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সজল-হিমির নতুন নাটক ‘জাদুঘরের নাম কষ্ট’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ নতুন নাটক ‘জাদুঘরের নাম কষ্ট’। নাটকটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয়ে করেছেন আব্দুন নুর সজল এবং হিমি। এই জুটিকে দেখা যাবে নতুন এই নাটকে।

সজল-হিমির নতুন নাটক ‘জাদুঘরের নাম কষ্ট’ 1

নাটকটির গল্পে বলা হয়েছে: মানুষ কষ্ট বুকে নিয়েই বেঁচে থাকেন। একেক মানুষের কষ্ট একেক রকম হয়ে থাকে। প্রতিটি মানুষের কষ্টের রঙই আলাদা। কষ্ট ছাড়া মানুষ খুঁজে পাওয়া সত্যিই কঠিন। তেমনি একজন মানুষ হলেন অপূর্ব, যার কষ্টের রঙ কোটি মানুষের কষ্টের রঙ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। সারা নামে একজন মেয়েকে মন উজাড় করে ভালোবেসেছিলেন অপূর্ব। তবে সারা অপূর্বকে বিয়ে না করে জাহিদকে বিয়ে করে ফেরে। কারণ সারার বাবা হলো হার্টের রোগী। সারা বাবাকে বাঁচাতে তার ভালোবাসাকে বিসর্জন দেন। অপূর্ব সারার ভালোবাসা না পেয়ে তার স্মৃতি ধরে রাখতে সারার জন্য একটি জাদুঘর নির্মাণ করেন।

গোটা রয়েছে পৃথিবীতে বিভিন্ন পার্ক, বিনোদনমূলক স্থান, চিড়িয়াখানা, বিচ। যেখানে সকলেই আনন্দ করতে যান। তবে প্রাণভরে কষ্ট-বেদনা এবং কান্নার কোনো স্থাপনা নেই। অপূর্ব প্রথম এমন একটি জাদুঘর নির্মাণ করে গোটা দুনিয়ায় হইচই ফেলে দিয়েছেন। এমনই একটি ভিন্ন গল্পে নির্মিত হলো নাটক ‘জাদুঘরের নাম কষ্ট’। ইজাজ আহমেদ মিলনের গল্পে এবং মিজানুর রহমান বেলালের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেন আদিত্য জনি।

নাটকটিতে সজল ও হিমি ছাড়াও আরও অভিনয় করেছেন মারজুক রাসেল, রতন, শায়মা রুশো, আনোয়ার, রুশ খান, শোরমী, পারভিন ও মিথিলা।

নাটকটি সম্পর্কে পরিচালক জনি একটি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ভিন্ন রকম এক ভালোবাসার গল্প দর্শকরা এই নাটকটিতে দেখতে পাবেন। যেখানে প্রিয় মানুষটির জন্য বড় ধরনের ত্যাগের উদাহরণও দেখা যাবে। সজল, হিমি এবং মারজুক তিনজনই ভালো অভিনয় করেছেন। তারা চরিত্রকে পার্ফেক্টভাবেই পর্দায় তুলে ধরতে নির্দিষ্ট সময়ের বাইরেও কাজ করেন। এই ভালোবাসার গল্পটি দর্শকদের ভালো লাগলে তবেই আমাদের কষ্ট সার্থক হবে।

নাটকটি সম্পর্কে অভিনেত্রী হিমি বলেছেন, ‘জাদুঘরের নাম কষ্ট’ ভালো গল্পের একটি ভালো নাটক। সজল ভাইয়ের সঙ্গে জুটি হয়ে এবং জনি ভাইয়ের নির্দেশনায় একটি ভিন্ন ধরনের কাজ করলাম। আশা করি যে, দর্শকের কাছে নাটকটি বেশ উপভোগ্য হবে।

শীঘ্রই একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে নাটকটি প্রচারিত হবে বলে জানিয়েছেন এর নির্মাতা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...